রাতভর ধর্ষণ নাবালিকাকে, সারা শরীর সিগারেটের ছ্যাঁকা যোগীরাজ্য ফের খবরে

ফের ধর্ষিতা হতে হল এক নাবালিকাকে। নৃশংস নির্যাতনের সাক্ষী থাকল যোগীরাজ্য।হাপুর, লখিমপুরের পরে এবার গোরক্ষপুর।ইটভাটার পাশ থেকে মেয়েটিকে যখন উদ্ধার করা হয় তার সারা শরীরে রক্তে মাখামাখি। চামড়া পুড়ে দগদগে ক্ষত হয়ে আছে। রক্ত জমে সারা শরীরে কালশিটের দাগ।

নাবালিকাকে এমন অবস্থায় অচৈতন্য হয়ে পড়ে থাকতে দেখে শিউরে ওঠেন পুলিশ কর্তারাও। সঙ্গে সঙ্গেই নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ মেলে। ধর্ষণের অভিযোগে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন : মৃত্যুর পর কদর? মরণোত্তর জাতীয় সম্মান সুশান্ত সিং রাজপুতকে

ঘটনা গোরক্ষপুরের। নির্যাতিতার পরিবার জানিয়েছে, গত শুক্রবার থেকেই নিখেোঁজ ছিল মেয়েটি। বাড়ির সামনের কল থেকে জল ভরতে গিয়েছিল। আর ফিরে আসেনি। সারা গ্রাম খুঁজেও মেয়ের সন্ধান না পেয়ে থানায় নিখোঁজ ডায়রি করে পরিবার। পুলিশ অফিসার বিপুল শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, শনিবার ভোর পাঁচটা নাগাদ গ্রামের বাইরে একটি ইটভাটার কাছ থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়।

গোরক্ষপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে নাবালিকার। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, মেয়েটির উপর নারকীয় নির্যাতন চালানো হয়েছে। মারধরের চিহ্নও রয়েছে। ধর্ষণের পরে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে সারা শরীর পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। দগদগে ঘা হয়ে গেছে চামড়ায়। মেয়েটির অবস্থা সঙ্কটজনক।

“জ্ঞান ফিরতেই মেয়ে বলেছে বাড়ির সামনে থেকে দু’জন তাকে তুলে নিয়ে যায়। সারা রাত তাকে মারধর করে, নির্যাতন চালায়। সে কান্নাকাটি করলে মুখ বন্ধ রাখতে বলে। তারপর সিগারেটের ছ্যাঁকা দিতে থাকে সারা শরীরে,” বলেছেন নির্যাতিতার বাবা।

পুলিশ জানিয়েছে, নাবালিকা ও তার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পাকড়াও করা হয়েছে দু’জনকে। পুলিশের দাবি, ধৃতদের একজনের নাম অর্জুন। ওই গ্রামেরই বাসিন্দা। নির্যাতিতা মেয়েটির পরিবার এর নামেই অভিযোগ দায়ের করেছে। অর্জুনকে জেরা করে ছোটু নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই দু’জনকেই আদালতে তোলা হবে।

আরও পড়ুন : তুরস্কে এরদোগান পত্নীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ আমির খানের, টুইটার জুড়ে প্রতিবাদ