সোনার দাম কমল অনেকটা, রূপোর দামও পড়ল ধড়াম করে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

প্রাথমিকভাবে দাম বেড়েছিল। কিন্তু সেই উর্ধ্বগমন বেশিক্ষণ স্থায়ী হল না। গত সেশনে একধাক্কায় অনেকটা দাম কমার মঙ্গলবারও পড়ল সোনার দর। এমসিএক্স সূচকে ১০ গ্রাম গোল্ড ফিউচার্সের দাম ০.১৪ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৫০,৪০০ টাকা। বিশ্ব বাজারে রাতারাতি পতনের পর গত সেশনে সোনার দর ২.৪ শতাংশ বা ১,২০০ টাকা পড়েছিল।

সোনার মতোই গত সেশনে হুড়মুড়িয়ে পড়েছিল রুপোও। তখন প্রতি কেজি রুপোর দর ৬,৩০০ টাকা বা ৯.৩ শতাংশ কমেছিল। মঙ্গলবার সেই গ্রাফ আরও নিম্নমুখী হয়েছে। ১০ গ্রাম সিলভার ফিউচার্সের দাম ০.৫ শতাংশ কমে দাঁড়িযেছে ৬১,০১১ টাকা।

আরও পড়ুন : গুজরাট নয় ‘দিদির বাংলা’ ! ১০ মাদ্রাসা শিক্ষককে জায়গা দিল না সল্টলেকের অতিথিশালা

মঙ্গলবার বিশ্ব বাজারে এক আউন্স স্পট গোল্ডের দাম ০.৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১,৯১৮.২ ডলার। পূর্ববর্তী সেশনে দর এতটাই কমেছিল যে একমাসেরও পর সোনার দাম এত নীচে নেমেছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে, ইউরোপের অনেক অংশে নতুন করে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত বিধিনিষেধের জেরে উর্ধ্বমুখী হয়েছে সোনা। প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় পড়েছে ডলারের সূচক। অথচ সোমবার মার্কিন ডলার ছ’সপ্তাহে সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছে গিয়েছিল।

এমনিতে সাধারণ মানুষের মধ্যে গহনা কেনার ক্ষমতা কমেছে। কিন্তু সোনার দাম কমছে না। অনেকে আবার ভাবছেন পরে হয়ত আরও বেড়ে যাবে সোনার দাম, তাই তারা সোনা কিনছেন। ফলে দামও বাড়ছে। বহুদিন পর পরপর দু’দিন বেশ খানিকটা কমল সোনার দাম। করোনা কালে মানুষের আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়েছে। হু হু করে বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম।

কাজ হারাচ্ছে অগণিত মানুষ। কিন্তু তারপর সোনার দাম বাড়ার কারণ হল বিনিয়োয়োগ করার জায়গা কমছে। ফলে সোনাতে বিনিয়োগ করাকে অনেকে নিরাপদ মনে করছেন । সেটাও সোনার দাম বাড়ার আন্যতম কারণ। এমনটাই মনে করছেন ওয়াকিবহালমহল।

আরও পড়ুন : রাষ্ট্রসংঘে ‘কাঁদুনি’ গেয়ে ফল হল না, ইরানের বিরুদ্ধে ফের নিষেধাজ্ঞা জারি ট্রাম্পের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest