কাউন্টডাউন শুরু, রাত পেরোলেই রামমন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তরের সেই শুভক্ষণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

শুরু হয়ে গিয়েছে কাউন্টডাউন। রাত পেরোলেই বহু প্রতিক্ষিত রাম মন্দিরের ভূমি পুজোর অনুষ্ঠান, যেখানে উপস্থিত থাকবেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একই মঞ্চে দেখা যাবে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের প্রধান মোহন ভাগবত, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এবং রাজ্যপাল আনন্দীবেন পটেল। বুধবার ভূমিপুজো অনুষ্ঠানে এঁরাই হলেন বিশেষ অতিথি।জানা গেছে, ভূমি পুজো উপলক্ষে অযোধ্যায় প্রায় ঘণ্টা তিনেক থাকবেন নমো। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের পরিস্থিতিতে উপেক্ষা করেই এই আয়োজন।

ভূমি পুজোয় ৪০ কেজি রুপোর ইট দিয়ে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন মোদী।সোমবার অতিথি তালিকা এবং নিমন্ত্রণপত্র প্রকাশ করেছে রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট। গেরুয়া রঙের এই নিমন্ত্রণপত্রে একেবারে উপরে নাম রয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। তিনি নিজে হাতে মন্দিরের ভূমিপুজো এবং ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন বলে জানানো হয়েছে তাতে।

আরও পড়ুন : সংখ্যালঘু মেধাবীদের জন্য নয়া ৩টি বৃত্তি ঘোষণা করল মমতা সরকার

অযোধ্যা মামলার অন্যতম মামলাকারী ইকবাল আনসারির কাছেই প্রথম নিমন্ত্রণপত্রটি যায় বলে জানা গিয়েছে। তিনি সেটি গ্রহণও করেছেন বলে জানা গিয়েছে। ১০ হাজারের বেশি বেওয়ারিশ লাশ সৎকার করে এ বছর পদ্মশ্রী পেয়েছেন যে মহম্মদ শরিফ, তাঁকেও রামমন্দিরের ভূমিপুজোয় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

ভূমি পুজোর ঠিক আগে বোমা ফাটালেন মধ্য প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিং। একাধিক টুইট করে বিজেপি শিবিরের করোনা আক্রান্তদের নাম উল্লেখ করে তিনি প্রশ্ন করেছেন, “মোদিজী আপনি অশুভ সময়ে শিলান্যাস করে আর কত জনকে হাসপাতালে পাঠাবেন?”

স্বরূপানন্দর নিদান টেনে এনে রাম মন্দিরের ভূমি পুজো সঠিক সময়ে হচ্ছে না, নরেন্দ্র মোদীর সুবিধা অনুসারে হচ্ছে, এটা কী ধরনের হিন্দুত্ব? এ প্রশ্নও করতে ছাড়েননি দিগ্বিজয়। টুইট করে তিনি  যোগীকে বলেছেন, “আপনিই মোদীজীকে বোঝান। আপনি থাকতে হিন্দু ধর্মের সব মর্যাদা কেন ভাঙা হচ্ছে?”

প্রধানমন্ত্রী ভূমি পুজোর দিন অযোধ্যায় আসার জন্য কড়া নিরাপত্তার দিকে খেয়াল রাখা হচ্ছে। সম্পূর্ণ অযোধ্যা সিল করে দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। মূল অনুষ্ঠানের আগে কাউকে অযোধ্যায় ঢুকতে দেওয়া হবে না। তবে অমিত শাহের করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর রাম মন্দিরের ভূমি পুজোয় আদৌ আসা উচিত কিনা, এই নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা। অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন মোদী, রাজনাথ নির্মলারা।

অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর আগের দিন তাই যারপরনাই উচ্ছ্বসিত রাবণ মন্দিরের পুরোহিত৷উত্তরপ্রদেশে রাবণ মন্দিরটি গৌতমবুদ্ধ নগরে অবস্থিত৷রাবণ মন্দিরের প্রধান পুরোহিত মহন্ত রামদাস জানালেন,’যদি রাবণ না থাকতেন, কেউ তো শ্রীরামকে চিনতেন না৷আবার ভগবান রাম না থাকলে রাবণকেও কেউ চিনতেন না৷’

‘রামের গোঁফ না থাকলে মন্দির হয়েও লাভ নেই’, অদ্ভূত দাবিতে সোচ্চার হিন্দুত্ববাদি নেতা। অযোধ্যায় রাম মন্দির হয়েও কোনও লাভ নেই। যদি ভুল সংশোধন না করা হয়। কী সেই ভুল? মহারাষ্ট্রের হিন্দুত্ববাদী নেতা সম্ভাজি ভিড়ের দাবি রাম , লক্ষণের অবশ্যই গোঁফ থাকতে হবে। সম্ভাজির দাবি গোবিন্দ গিরিরাজ মহারাজ-কে তিনি বলেছেন, এই ভুল সংশোধন না করা হলে মন্দিরটি নির্মাণ হলেও, তা রাম ভক্তদের কোনও কাজে আসবে না।

আরও পড়ুন : কিশোর কুমারের জন্মদিনে মান্না দে’র গান পোস্ট, ফের হাসির খোরাক দিলীপ ঘোষ

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest