আলিপে-সহ ৪৩ চিনা অ্যাপে নিষেধাজ্ঞা চাপাল ভারত, বেশির ভাগ ডেটিং অ্যাপ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

দেশের ‘সার্বভৌমত্ব এবং নিরাপত্তা’ বিঘ্নিত হতে পারে, এমন আশঙ্কায় মোট ৪৩টি মোবাইল অ্যাপ নিষিদ্ধ করল কেন্দ্রীয় সরকার। ঘটনাচক্রে, যে অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে, তার বেশির ভাগই চিনা অ্যাপ এবং সেগুলি ডেটিং সংক্রান্ত। ইদানীং ডেটিং অ্যাপের জনপ্রিয়তা যথেষ্ট বেড়েছে। তরুণ-তরুণীদের মধ্যেও এই অ্যাপের ব্যবহার ক্রমশ বাড়ছে।

ভারতের তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় এই মোবাইল অ্যাপগুলিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে বলে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক সূত্রে মঙ্গলবার জানানো হয়েছে। এই মোবাইল অ্যাপগুলির ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের নিরাপত্তা, প্রতিরক্ষা এবং সার্বভৌমত্ব বিপদের মুখে পড়তে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছিলে ‘ইন্ডিয়ান সাইবার ক্রাইম কো-অর্ডিনেশন সেন্টার’। ওই হুঁশিয়ারি পাওয়ার পরেই এই পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে মন্ত্রক সূত্রে খবর।

নিষিদ্ধ তালিকায় আছে আলিসাপ্লায়ার্স মোবাইল অ্যাপ (AliSuppliers Mobile App), আলিবাবা ওয়ার্কবেঞ্চ ওয়ার্কবেঞ্চ (Alibaba Workbench), আলিএক্সপ্রেস (AliExpress), আলিপে ক্যাশিয়ারের (Alipay Cashier) মতো অ্যাপ। কেন্দ্রের এক আধিকারিক ‘হিন্দুস্তান টাইমস’-কে বলেন, ‘এবার যে অ্যাপগুলি ব্যান করা হয়েছে, সেগুলির মধ্যে অন্যতম হল – আলিবাবা গ্রুপের অ্যাপ, ছোটো ভিডিয়ো শেয়ারের অ্যাপ স্ন্যাক অ্যাপ, বিজনেস কার্ড রিডার অ্যাপ ক্যাম কার্ড, ট্রাক এবং চালকদের সমষ্টিগত লালামুভ।’

আরও পড়ুন: কর্পোরেটরা ব্যাঙ্ক খুললে তছনছ হয়ে যাবে দেশের অর্থনৈতিক কাঠামো, সাবধান করলেন রাজন

বিশেষজ্ঞদের মতে, অ্যাপের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে আগেই কড়া বার্তা দিয়েছে ভারত। এবারও আলিপে ক্যাশিয়ারের মতো অ্যাপ ‘ব্লক’ নিজেদের অবস্থান আরও স্পষ্ট করে দিল নয়াদিল্লি। তবে অ্যাপে নিষেধাজ্ঞা চাপানো নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ‘ইন্টারনেট ফ্রিডম ফাউন্ডেশন ট্রাস্টি’-র অপর গুপ্ত। তিনি বলেন, ‘নয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অ্যাপ ব্যানের নির্দিষ্ট এবং স্পষ্ট কারণও বলা হয়নি। শুধুমাত্র আগের নির্দেশগুলিকে উত্থাপন করা হয়েছে। অ্যাপ ব্যান করার বিষয়টি একেবারে সাধারণ ধারায় পরিণত হওয়ার ক্ষেত্রে এটা অত্যন্ত উদ্বেগজনক অগ্রগতি।’

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২৯ জুন ৫৯টি এবং ২ সেপ্টেম্বর মোট ১১৮টি মোবাইল অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। সেগুলি সবই চিনা অ্যাপ বলে জানিয়েছিল কেন্দ্র। তখনও এক বিবৃতি জারি করে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছিল, দেশের সার্বভৌমত্ব এবং নিরাপত্তার খাতিরে এবং দেশের জনসাধারণের সুরক্ষার জন্য ওই মোবাইল অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। সেই নিষিদ্ধকরণের তালিকায় টিকটক, ইউসি ব্রাউজার, উইচ্যাট-এর মতো জনপ্রিয় অ্যাপগুলি ছিল। অভিযোগ উঠেছিল, ওই অ্যাপগুলির মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে নজরদারি চালাচ্ছিন চিন। দেশের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কায় তখন সেগুলি নিষিদ্ধ করা হয়। এর পর আবার মঙ্গলবার আরও ৪৩টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হল।

আরও পড়ুন: পচে-গলে কঙ্কালসার! মায়ের মরদেহ নিয়ে ৯ মাস ঘরে মহিলা, চাঞ্চল্য বান্দ্রায়

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest