অংশ নেবে চিন-পাকিস্তান, রাশিয়ায় সামরিক মহড়া থেকে সরে এল ভারত

রাশিয়ায় চিনের সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল ভারতের। কিন্তু আগামী মাসের সেই মহড়া থেকে সরে এল নয়াদিল্লি। বিষয়টির সঙ্গে অবহিত আধিকারিকরা শনিবার একথা জানিয়েছেন।আগেই এমন সম্ভাবনার কথা শোনা যাচ্ছিল।

আগামী ১৫ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রাশিয়ার অ্যাস্ট্রক্যান অঞ্চলে ‘ক্যাভকাজ ২০২০’ সেই মহড়া চলবে। তাতে যোগ দিতে পারে পাকিস্তানও। সেখানে ভারতীয় সেনা, বায়ুসেনা ও নৌসেনার একটি দল পাঠানো হবে বলে জানিয়েছিল নয়াদিল্লি। কিন্তু পরে সেই সিদ্ধান্ত বদল করা হয়েছে।

বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং এনএসএ অজিত ডোভাল, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) বিপিন রাওয়াত-সহ সংশ্লিষ্ট শীর্ষ আধিকারিকদের সঙ্গে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে ওই মহড়া থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রুশ আমন্ত্রণ ভারত গ্রহণ করবে না— এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সরকারের একটি উচ্চপদস্থ সূত্রে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন : রক্তাক্ত ছবি পোস্ট করে ‘হবু মা’ অনুষ্কাকে শুভেচ্ছা! টুইটারে ট্রোলড ঋতাভরী

চিন ও পাকিস্তানের সঙ্গে মহড়ায় অংশ নেওয়ার খবর প্রথম সামনে আসার পর থেকেই প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছে নয়াদিল্লি। বিশেষত চিনের সঙ্গে সীমান্ত বিবাদ ও গালওয়ান সংঘর্ষের পর কেন ভারত কেন সামরিক মহড়ায় অংশ নেবে, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছিল।

মহড়ায় অংশগ্রহণ করবে দক্ষিণ ওসিসা এবং আবখাজিয়াও। যে দুটি দেশকে স্বীকৃতি দেয়নি ভারত। সেটাও নয়াদিল্লির সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। দক্ষিণ ওসিসা এবং আবখাজিয়াকে জর্জিয়ার অংশ হিসেবে বিবেচনা করে রাষ্ট্রসংঘের অধিকাংশ সদস্য। ভারতও সেই দলে পড়ে।

নয়াদিল্লির যুক্তি হল, ওই দুটি ‘দেশ’ রাষ্ট্রসংঘের সদস্য নয়। দক্ষিণ ওসিসা এবং আবখাজিয়াকে অবশ্য দেশ হিসেবে বিবেচনা করে রাশিয়া। কিন্তু এরকম মহড়ায় অংশগ্রহণের ফলে কূটনৈতিক সমস্যা বাড়তে পারে বলে ধারণা ভারতের।২০০ মিলিটারি পার্সোনেল যার মধ্যে ১৮০ জন সেনাকে পাঠানোর কথা ছিল নৌবাহিনী, স্থলবাহিনী এবং বায়ুসেনার এই মহড়ায় যোগদানের কথা ছিল। যা শেষ পর্যন্ত বাতিল হয়ে গেল।

আগে শুধুমাত্র রাশিয়া এবং কোনও কোনও বছর প্রতিবেশী দু’-একটি দেশ এই মহড়ায় অংশ নিত। ২০১৮ সালে তার বহর বাড়িয়ে বহুজাতিক করা হয়। তার পর থেকেই বহু দেশ অংশ নেয় ওই মহড়ায়। এ বছর ‘ক্যাভকাজ ২০২০’ নামে ওই মহড়া হওয়ার কথা সেপ্টেম্বরে। সেই মতো ভারত, পাকিস্তান, চিন-সহ মোট ১৯টি দেশকে আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছিল রাশিয়া। নয়াদিল্লির আমন্ত্রণে ছিল সেনাবাহিনীর ১৫০ জন প্রতিনিধির যোগ দেওয়ার আবেদন। মহড়ায় যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী।

আরও পড়ুন : দুষ্কৃতীদের হাতে খুন পিসেমশাই, আহত পরিবারের আরও চারজন, সে কারণেই কি ফিরে এলেন রায়না?