খনি, বিদ্যুৎ থেকে প্রতিরক্ষা, নির্মলার চতু্র্থ ঘোষণায় হাতিয়ার সেই বেসরকারিকরণই

ওয়েব ডেস্ক: চতুর্থ দফায় বরাদ্দ ঘোষণা করতে গিয়ে বেসরকারিকরণকেই পাখির চোখ করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। এই বিষয়ের মধ্যেই মূলত সীমাবদ্ধ থাকল তাঁর এদিনের সাংবাদিক বৈঠক।

কয়লা, খনিজ উত্তোলন, বিদ্যুৎ এবং বিমানবন্দরের মতো ক্ষেত্রে সংস্কার হতে চলেছে। এই সমস্ত ক্ষেত্রে বেসরকারি পুঁজির দরজা খুলে দেওয়া হচ্ছে। প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ বিদেশি লগ্নির ঊর্ধ্বসীমা বাড়িয়ে ৭৪ শতাংশ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: সংক্রমণে চিনকেও টপকে গেল ভারত, আক্রান্ত প্রায় ৮৬ হাজার, সুস্থ ৩০ হাজারের বেশি

কেন্দ্রে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা দখলের পরে ধাপে ধাপে বহু ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছিল। ব্যাংকিং ক্ষেত্রে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির সংযুক্তিকরণ ও পেট্রোলিয়াম, শিপিং কর্পোরেশন, কন্টেনার কর্পোরেশন-সহ রত্ন সংস্থাগুলির সরকারি অংশিদায়িত্ব কমিয়ে ফেলা তার অন্যতম অঙ্গ ছিল। কয়লা, খনিজ উত্তোলন, প্রতিরক্ষা, বিদ্যুতের মতো ক্ষেত্রে সংস্কার নিয়ে আলোচনা চলছিল। চলতি করোনা সংকটের ‘সুযোগে’ সেই কাজটাই যেন সেরে ফেললেন নির্মলা সীতারামন।

এ বার থেকে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো)-র পরিকাঠামো ব্যবহার করে বহির্বিশ্ব সংক্রান্ত নানা গবেষণায় অংশ নিতে পারবে তারা। মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ বা রকেট পাঠানোর ক্ষেত্রেও ইসরো-র পরিকাঠামো ব্যবহার করতে পারবে তারা। শনিবার চতুর্থ দফায় করোনা খাতে বরাদ্দ ঘোষণা করতে এমনটাই জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

করোনা সংকটে জর্জরিত ভারতীয় অর্থনীতিকে ঘুরে দাঁড়ানোর দিশা দেখাতে গিয়ে ‘আত্মনির্ভর ভারত’ গঠনের ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ‘আত্মনির্ভরতা’র মন্ত্রকে হাতিয়ার করে বেসরকারিকরণের কর্মসূচি এগিয়ে নিয়ে গেলেন তাঁর সরকারের অর্থমন্ত্রী।

স্বনির্ভরতা বাড়াতে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বিদেশি লগ্নির পথ আরও প্রসারিত করা হল। FDI-এর সর্বোচ্চ সীমা বাড়িয়ে ৭৪ শতাংশ করার কথা ঘোষণা করেন নির্মলা সীতারামন। একইসঙ্গে যে অস্ত্র দেশে তৈরি করা হবে তা আর বিদেশ থেকে আমদানি করা হবে না। একইভাবে বিমানবন্দর পরিচালনা নিয়েও সরকারের বেসরকারিকরণের ভাবনা অর্থমন্ত্রীর এই দিনের সাংবাদিক বৈঠকে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনা কাঁটা, শেষ পর্যন্ত যোগীরাজ্যেও বন্ধ হয়ে গেল NPR!

Gmail 2