Looking at the shape of the forehead can be understood human character!

জ্যোতিষ কথা : কপালের গড়ন দেখে বুঝে নেওয়া যায় মানুষের চরিত্র!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

কপাল দেখে ‘কপাল’ বোঝা যায়! এই কথাটি বহু প্রচলিত। অনেকেই বলে থাকেন, কপালের গড়নই স্পষ্ট করে দেয় যে একজন ব্যক্তি বা মহিলার কপালে কী লেখা আছে। তবে সামুদ্রিক শাস্ত্র বলছে, কপালের গড়নের কয়েকটি লক্ষণ থেকে বুঝে নেওয়া যায় যে সেই ব্যক্তি বা মহিলার চরিত্র কীরকম হতে পারে। তবে তাঁর ভবিষ্যৎ বলতে পারে না সামুদ্রিক শাস্ত্র। এই শাস্ত্রের মাধ্যমে কেবলমাত্র শারীবির বৈশিষ্ট দেখে চিনে নেওয়া যেতে পারে একজন মানুষকে। দেখে নেওয়া যাক, কোন ধরনের কপালের গড়ন ব্যক্তির চরিত্র সম্পর্কে কী বলছে?

কপাল যাঁদের সরু হয়, তাঁরা ভীষণই আবেগপ্রবণ হয়ে থাকেন। সহজেই যেকোনও বিষয়কে সংবেদনশীলতায় নিয়ে ফেলেন এঁরা। মন থেকে যাবতীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন এঁরা। সহজ , সরল ব্যক্তিত্বের অধিকারী এই সমস্ত মহিলা বা ব্যক্তিরা ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না।

চওড়া কপালকে পাঁচ আঙুলের কপালও বলা হয়। যাঁদের কপাল চওড়া তাঁদের বুদ্ধি যত বেশি , ততই তাঁরা মেধাবী। চরম দক্ষতা থাকে এঁদের যেকোনও কাজের জন্য। কোনও লক্ষ্য পূরণ করতে হলে, এঁদের থেকে তৎপর বেশি কেউ হয় না। যে কারোর থেকে এঁরা কাজ তাড়াতাড়ি শিখে ফেলেন।

অনেকের কপাল থাকে একেবারে সোজা আকারের। কপালে কোনও রকমের ঢেউ খেলানো থাকে না। এঁরা কোনও কিছুর জ্ন্য কারোর সঙ্গে বোঝাপড়ায় আসতে পারেন না। তবে কাউকে যদি এঁরা একবার ভালোবেসে ফেলেন, তাহলে এঁরা সেই মানুষটির জন্য সব কিছু ত্যাগ করতে পারেন । এঁরা মন থেকে ভালোবাসেন।

আরও পড়ুন : ৩ দিন ঘেরাও করব, পারলে আটকান, বিদ্যুতের ‘পাগলামি’ সারাতে দাওয়াই Anubrata-র

অনেকেরই কপালের আকার বাঁকানো ধরণের হয়। এঁরা বেশ সাহসী , ক্ষমতাসম্পন্ন ব্যক্তিত্বের অধিকারী হন। এঁরা ভীষণভাবে ইতিবাচক মানু। হন। যেকোনও কাজ করার বিষয়ে এঁদের উদ্যম থাকে। তবে এঁদের সম্পর্কে কেউ একবার খারাপ কথা বললে, তাঁকে ছেড়ে কথা বলেন না এঁরা। এঁরা ভীষণ মিশুকে হন।

যাঁদের কপালের আকার পাহাড়ের মত হয়, তাঁরা ভাগ্যবান হন। অনেকেই এঁদের স্থানীয় ভাষায় ‘ঢিপ কপালী’ বলে থাকেন। এই ধরনের মানুষরা নম্র, ভদ্র স্বভাবের হন। সাধারণত এঁরা দয়ালু হন। নিজের লক্ষ্যপূরণ থেকে এঁদের কেউ সরিয়ে দিতে পারেন না।

খুবই উঁচু কপাল হলে, সেই ব্য়ক্তি বা মহিলারা বেশ জেদি হন। সাধারণত খুব উঁচু কপাল দেখা যায় না। নিজের কাজ সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে এঁরা একপ্রকার জেদ ধরে বসে থাকেন। নিজেকে সন্তুষ্ট রাখতে এঁরা যেকোনও কিছু করতে পারেন।

আরও পড়ুন : যাত্রীবোঝাই বাসে ৩০টি তাজা বোমা! ধাওয়া করে উদ্ধার সেনা গোয়েন্দাদের

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest