বিশ্বজুড়ে আচমকাই স্তব্ধ হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম পরিষেবা

এই প্রথমবার নয়, সাম্প্রতিকালে একাধিকবার ফেসবুক মেসেঞ্জার ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ফের চরম ভোগান্তির মুখে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা। শুক্রবার ভারত-সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই এই মেসেজিং অ্যাপের পরিষেবা আধ ঘণ্টারও বেশি সময়ের জন্য সাময়িক ভাবে বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ওই সময়ের মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে কোনও মেসেজ, ছবি বা ভিডিয়ো পাঠাতে প্রবল সমস্যার মুখে পড়েন অগণিত ব্যবহারকারী। হোয়াটসঅ্যাপ ছাড়াও ইনস্টাগ্রাম এবং মেসেঞ্জারেও একই সমস্যা দেখা দিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে ঠিক কীসের জন্য পরিষেবা থমকে গেল, সে কারণ অস্পষ্ট।

শুক্রবার রাত ১০ টা ৪৫ এর পর থেকেই রহস্যজনকভাবে মেসেজ ডেলিভারি বন্ধ হয়ে যায় বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই মেসেজিং অ্যাপে। কিছুক্ষণ পর ইস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীরাও একই দাবি করতে থাকেন। স্বল্প সময়েই বোঝা যায়, গোটা বিশ্বে একটা বড় অংশজুড়ে স্তব্ধ হয়ে পড়েছে এই দুই জনপ্রিয় অ্যাপের পরিষেবা। ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গের মালিকানাধীন এই দুই সংস্থা এখনও পর্যন্ত পরিষেবা বিপর্যস্ত হওয়ার কোনও ব্যাখ্যা নিজেদের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে দেয়নি।

আরও পড়ুন: সবচেয়ে বড় সাইবার আক্রমণ: ৩২৭ কোটি মানুষের পাসওয়ার্ড হ্যাক

এই প্রথমবার নয়, সাম্প্রতিকালে একাধিকবার ফেসবুক মেসেঞ্জার ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে। যদিও হোয়াটসঅ্যাপের মতো জরুরি এবং অতিপ্রয়োজনীয় অ্যাপের ক্ষেত্রে পরিষেবা বিপর্যয়ের নজির খুব একটা নেই বললেই চলে। তবে গত ফেব্রুয়ারি মাসেও ব্রিটেনে একই ধরনের সমস্যা দেখা দিয়েছিল যখন ফেসবুকের মালিকানাধীন একাধিক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম স্তব্ধ হয়ে যায়। যদিও শুক্রবার ভারতীয় সময় রাত ১১ টা ৪০ নাগাদ দেখা যায়, হোয়াটসঅ্যাপের পরিষেবা আবার স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে।

এই প্রসঙ্গেই মনে করিয়ে দেওয়া যায়, শুক্রবারই কেন্দ্রীয় সরকার দিল্লি আদালতকে আবেদন জানিয়েছে তারা যেন হোয়াটসঅ্যাপের নতুন গোপনীয়তা নীতি (প্রাইভেসি পলিসি) এবং পরিষেবার শর্ত কার্যকর করা থেকে বিরত থাকে। হোয়াটসঅ্যাপের নতুন পলিসিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে করা একটি আবেদনের জবাবে পালটা হলফনামা দায়ের করে এই আবেদন জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

আরও পড়ুন: অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমকে অর্থ দিতে শেষে চুক্তি করল ফেসবুক

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest