চাঁদের আলোকিত অংশে রয়েছে জল! এতদিনের ধারণা ভেঙে বিপ্লবিক আবিষ্কার নাসার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সূর্যালোকের স্পর্শ পাওয়া চাঁদের অংশে জলের সন্ধান পেল নাসা-র স্ট্র্যাটোস্ফেরিক অবজার্ভেটরি ফর ইনফ্রারেড অ্যাস্ট্রোনমি (সোফিয়া)। এই আবিষ্কারের সূত্রে চাঁদের পিঠে ছায়াশীতল অংশ তো বটেই, গোটা উপগ্রহেই মাটির নীচে জলের অস্তিত্ব রয়েছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেল।

‘নেচার অ্যাস্ট্রোনমি’তে প্রকাশিত এই নতুন গবেষণা সম্পর্কে টুইট করে নাসা জানিয়েছে, ‘‘আমাদের সোফিয়া টেলিস্কোপের সাহায্যে আমরা জলের সন্ধান পেয়েছি চাঁদের সূর্যালোকিত অংশেও।’’ নাসা আরও জানিয়েছে, বিজ্ঞানীরা মনে করছেন এই জল সম্ভবত জমা রয়েছে মাটির ভিতরে, যা পেনসিলের ডগার চেয়েও ছোট ছোট আকৃতির গর্তের মধ্যে রয়েছে। কয়েক দশক আগেও মনে করা হত চাঁদের বুকে জল নেই। তা পুরোপুরি শুষ্ক। কিন্তু প্রায় এক দশক আগে পরপর কয়েকটি আবিষ্কারের মাধ্যমে সেই ধারণা ভেঙে যায়। জানা যায়, চাঁদে জলের অস্তিত্বের কথা।

আরও পড়ুন: আজীবনের জন্য Mute করতে পারবেন হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট, জেনে নিন নিয়ম

কিন্তু এবার সেই ধারণাতেও এল পরিবর্তন। আসলে প্রথমে বিজ্ঞানীরা জল অর্থাৎ H2O ও হাইড্রক্সিলের মধ্যে ফারাক করতে পারেননি। প্রসঙ্গত, হাইড্রক্সিল হল এমন এক অণু যার মধ্যে অক্সিজেনও হাইড্রোজেন দুইয়েরই একটি করে পরমাণু রয়েছে। নতুন গবেষণা প্রমাণ করে দিচ্ছে, চাঁদে আণবিক আকারে জল রয়েছে, এমনকী চাঁদের সূর্যালোকিত অংশেও।

সংবাদ সংস্থা এএফপিকে এই গবেষণার অন্যতম গবেষক কেসি হনিবল জানিয়েছেন, সম্ভবত এই জলকে পানীয় জল, শ্বাসপ্রশ্বাসের উপযুক্ত অক্সিজেন কিংবা রকেটের জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। ফলে আগামী দিনে মানুষ চাঁদে গেলে এই আবিষ্কার দারুণ সাহায্য করতে পারে।

গবেষণা থেকে আরও জানা গিয়েছে চাঁদের মেরু অঞ্চলেও ছোট ছোট ক্রেটার বা গর্তের মধ্যে বরফ আকারে জল থাকতে পারে। এই সব অংশগুলিতে কখনও সূর্যের আলো পড়েনি। এর আগে ২০০৯ সালে নাসা আবিষ্কার করেছিল চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে জল কেলাসিত অবস্থায় রয়েছে গভীর গর্তের মধ্যে। কিন্তু এবার বিজ্ঞানীরা খুঁজে পেয়েছেন কোটি কোটি খুদে গর্ত। মনে করা হচ্ছে, এগুলির মধ্যে বরফ আকারে জল রয়েছে। ফলে গবেষকরা মনে করছেন, আগের ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করে চাঁদের আরও বহু বিস্তৃত অংশেই জল রয়েছে। চাঁদ সম্পর্কে এতদিনের গবেষণার নিরিখে এই আবিষ্কারকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: Subho Bijoya Dashami Wishes: শুভ বিজয়া দশমীর শুভেচ্ছা বার্তা, পাঠাতে পারবেন প্রিয়জনদের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest