ত্বকের উজ্বলতা ফেরাতে ব্যবহার করুন শিট মাস্ক, জেনে নিন স্টেপ বাই স্টেপ…

আমরা আমাদের ত্বক ভালো রাখার জন্য অনেক কিছুই ব্যবহার করে থাকি। সেগুলির মধ্যে অন্যতম হল শিট মাস্ক। এটি ত্বকের জেল্লা ধরে রেখে ভিতর থেকে ত্বকের স্বাস্থ্য বজায় রাখার এক অন্যতম উপাদান। শিট মাস্ক ব্যবহার করে উপকার পাওয়ার জন্য আমাদের জানতে হবে কীভাবে ঠিক নিয়ম মেনে এই শিট মাস্ক ব্যবহার করতে হয়। শিট মাস্ক ব্যবহার করার ঠিক নিয়ম স্টেপ বাই স্টেপ।

শিট মাস্ক ব্যবহারের স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতিঃ

খুবই সহজ পাঁচটি স্টেপের মাধ্যমে আপনারা শিট মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন ঘরে বসেই। শুধু ভালো মানের শিট মাস্ক কিনে নেবেন দোকান থেকে বা অনলাইনে।

১. প্রথমে মুখ পরিষ্কার:

একটি ভালো শিট মাস্ক সবচেয়ে ভালো কাজ করতে পারে তখনই যখন মুখ পরিষ্কার থাকে। পরিষ্কার মুখ থাকলে তবেই শিট মাস্কের উপাদানগুলো মুখের গভীরে যেতে পারে। তার জন্য দরকার একটি ভালো ক্লিনসারের। ভালো ক্লিনসার আগে মুখ থেকে যাবতীয় নোংরা, ময়লা, তেল সরিয়ে দেবে। মুখের উপরের মরা চামড়া সরিয়ে দেবে। আর তখনই তো শিট মাস্কের সিরাম ত্বকের ভিতরে প্রবেশ করবে।

আগে অল্প গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এবার একটা ক্লিনসার দিয়ে হাল্কা হাতে ৫ মিনিট মতো মুখ ঘষে পরিষ্কার করুন। তারপর ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। হাল্কা হাতে তোয়ালে দিয়ে থুপে থুপে মুখ মুছে নিন।

২. যথাযথ ভাবে সেট করুন শিট মাস্ক:

মুখের ওপর এই শিট মাস্ক খুব ভালো করে সেট করে বসাতে হবে। তবেই কিন্তু উপকার পাওয়া যাবে। যেহেতু শিট মাস্ক খুব নরম হয়, তাই অনেকে আলতো করে বসাতে গিয়ে ঠিক স্থানে বসাতে পারেন না। নড়ে যায় সবটা, কুঁচকে যায়। সাবধানে চোখ, নাক, কপাল আর থুতনির সঙ্গে অ্যালাইন ঠিক করে তারপর আস্তে আস্তে মুখে শিট মাস্ক বসান। যদি চোখের কাছের অংশে চোখ ঢেকে যাচ্ছে মনে হয় তাহলে সেই অংশটা কেটে দিন। এরপর ভালো করে চেপে সেট করে নিন।

৩. এবার অপেক্ষার পালা

শিট মাস্ক ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সময়ের জ্ঞান থাকা খুব দরকার। খুব কম সময় রাখলে যেমন ভালো কাজ হবে না, তেমনই অনেক ক্ষণ রাখলেও ভাল ফল পাওয়া যাবে না। শিট মাস্ক ব্যবহার করার সময়ে মুখে একটা বাউন্ডারি তৈরি হয়। এই বাউন্ডারি ভেদ করে জলীয় বাষ্প বা আর্দ্রতা কিছুই ভিতরে যেতে পারে না, বা ভিতর থেকে বাইরে আসতে পারে না। সেই সময়ে আমাদের ত্বক শিট মাস্ক থেকে ভালো উপকরণের গুণ শুষে নিতে থাকে। কিন্তু যদি বেশি ক্ষণ এই মাস্ক মুখে থাকে তাহলে কিন্তু মুখ ড্রাই হতে শুরু করে। স্কিনের ময়েশ্চার শুষে নিতে থাকে এই মাস্ক। তাই ২০ থেকে ৩০ মিনিট যথেষ্ট। আপনি সজাগ থাকবেন এই সময়ের মধ্যে কখন আপনার মুখে টান ধরছে। তখনই আপনি শিট মাস্ক তুলে নিতে পারেন।
৪. হাল্কা ম্যাসাজ করে নিন

মাস্ক তুলে নেওয়ার পর হাল্কা হাতে মুখে একটু ম্যাসাজ করে নিন। এতে মুখে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে। ফলে ফল অনেক ভালো হবে। যদি আপনার হাতে শিট মাস্কের খানিক সিরাম লেগে থাকে আপনি সেটাও মুখে এই সময়ে ম্যাসাজ করে নিতে পারেন। হাল্কা করে মুখের নিচ থেকে উপরের দিকে সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করুন। আপনি বরফও ব্যবহার করতে পারেন। একটি কাপড়ের মধ্যে বরফ নিয়ে সেটা মুখে ঘষতে পারেন। এতেও রক্ত সঞ্চালন খুব ভালো হয়। অন্তত ৫ মিনিট করতে পারলে তো খুবই ভালো হয়। তারপর ভালো করে মুখ মুছে নিন।

৫. ময়েশ্চাইজার ব্যবহার করুন

আপনি এতক্ষণ মাস্ক মুখে ব্যবহার করে যে উপকার পেলেন সেটা এবার লক করার পালা। সেটা লক করবেন একটি ভালো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করে। এই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার না করলে আপনার স্কিনের উপর আবার ময়লা জমতে শুরু করে। আর সব উপকার শেষ হয়ে যাবে। আপনার পরিষ্কার মাস্ক ব্যবহারের ফলে জেল্লাদার ত্বকের মধ্যে ময়েশ্চারাইজার একটা শিল্ড তৈরি করছে। এবার সারা রাত আপনার মুখ ভিতর থেকে সুন্দর হতে থাকবে। তবে কোনও হাল্কা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করাই ভালো। ভারী, তেলতেলে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার না করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

এই সহজ পাঁচটি পদ্ধতি আপনার ত্বককে কোথা থেকে কোথায় নিয়ে যেতে পারে আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না। শুধু সপ্তাহে দু’ থেকে তিনবার এটি করুন। পারলে রাতে করলেই ভালো, কারণ তখন আমরা আর বাইরে যাই না। ফলে স্কিন বিশ্রাম পায়। আর এতো সহজ পদ্ধতি বলে দেওয়ার পর ব্যবহার না করার তো কারণ থাকতেই পারে না।

কয়েকটি প্রোডাক্ট দিয়ে দিলাম আপনারা আপনার পছন্দ মতো দেখে নিতে পারেন। সবগুলিই ভালো ব্র্যান্ডের আর দাম ১০০ টাকার নিচেয়।