ইস্টবেঙ্গলকে বাঁচাতে চান এই প্রবাসী বাঙালি শিল্পপতি,কিনতে আগ্রহী ৫০ শতাংশ শেয়ার

ইনভেস্টর পেয়ে অবশেষে আর্থিক সংকট থেকে মুক্তি পেতে চলেছে লাল-হলুদ। জাকার্তার বাঙালি শিল্পপতি প্রসূন মুখোপাধ্যায়কে মনে আছে? আশিয়ান কাপ (Asean Cup) খেলতে যাওয়া দলের কোচ, প্রতিটা ফুটবলার থেকে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব কর্তারা, আশিয়ান জয়ের পিছনে তাঁর অবদান বোধহয় কোনওদিন ভুলতে পারবেন না।

লকাতার তালতলা অঞ্চলে বড় হওয়া প্রসূন মুখোপাধ্যায় ইস্টবেঙ্গলের সংকটের মুহূর্তে এগিয়ে এলেন ত্রাতা হিসেবে। ক্লাবের ইনভেস্টর হয়ে। তাঁর ‘ইউনিভার্সাল সাকসেস এন্টারপ্রাইজেস লিমিটেড’-এর সঙ্গে চুক্তির মাধ্যমে আর্থিক লগ্নি করতে রাজি হয়ে গিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন : laliiga: আসা শেষ বার্সার, খেতাব খুইয়ে ক্ষুব্ধ মেসি,বললেন ‘আত্মসমীক্ষা’র সময় এসেছে

জাকার্তা থেকে ফোনে এ দিন প্রসূন বললেন, “আইনি প্রক্রিয়া চলছে। সেগুলো মিটে গেলেই ইস্টবেঙ্গলের মেজর শেয়ার কিনে নেওয়ার জন্য আর্থিক বিনিয়োগ করছি আমি।” কোয়েস চলে যাওয়ার পরে অনেকদিন ধরেই দেশে বিদেশে বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে কথা বলে যাচ্ছিলেন ইস্টবেঙ্গল কর্তারা।

এই আর্থিক সংকটের সময়ে পেশাদারি ঢংয়ে কোনও সংস্থাই হয়ত এগিয়ে আসবে না ইস্টবেঙ্গলের পিছনে আর্থিক বিনিয়োগ করতে। তারাই এগিয়ে আসবে, যাদের কাছে ইস্টবেঙ্গল নামটার সঙ্গে আবেগ জড়িয়ে আছে। এই ভাবনা থেকেই বাংলাদেশের এক বহুজাতিক সংস্থার সঙ্গে অনেকদূর কথা এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন লাল-হলুদ কর্তারা।

যদিও শেষ মুহূর্তে আইএসএল খেলার জন্য প্রতিবছর ৪০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে রাজি হননি সংস্থার কর্তারা। ইস্টবেঙ্গল কর্তারা তখন বুঝে যান, এভাবে কোনও একটা সংস্থার থেকে এই মুহূর্তে এত বড় অঙ্কের অর্থ পাওয়া যাবে না।

তখন থেকেই ভাবনা শুরু হয়, একটা বড় সংস্থাকে ধরে ক্লাবের মেজর শেয়ার তাঁকে দিয়ে দেওয়া হবে। পাশাপাশি ছোট ছোট কিছু স্পনসর নিয়ে বাকি আর্থিক সমস্যাটা মেটানো হবে। সেভাবেই সিঙ্গাপুর এবং জাকার্তার শিল্পপতি প্রসূন মুখোপধ্যায়ারে নামটা মনে আসে লাল-হলুদ কর্তাদের।

আশিয়ান কাপের সময় ইস্টবেঙ্গলকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসা ছাড়াও, সালিম গোষ্ঠীকে সঙ্গী করে এই রাজ্যে বিনিয়োগ করার জন্য অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলেন।

“সেই আশিয়ানের সময় থেকেই ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে জড়িয়ে গিয়েছি। জাকার্তায় এসে বাংলার কোনও ফুটবল ক্লাব চ্যাম্পিয়ন হচ্ছে, অনাবাসী ভারতীয় হিসেবে এই ঘটনাটা আমার জন্য অত্যন্ত গর্বের ছিল। তাই নীতু (দেবব্রত সরকার) যখন আমাকে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে বিনিয়োগ করার প্রস্তাব দেন, রাজি হয়ে যাই আমি।” বলেন প্রসূন।

আরও পড়ুন : লড়াকু জয়, লা লিগা চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ