স্পিনের সামনে বেসামাল ইংল্যান্ড, চতুর্থ টেস্টেও অনায়াস জয় বিরাটদের

প্রথম ইনিংসে ১৬০ রানের লিড নেওয়ার পরেই কার্যত চূড়ান্ত হয়ে যায় ইংল্যান্ড হারতে চলেছে আরো একবার।

ইংল্যান্ড: ২০৫/১০ (স্টোকস ৫৫, লরেন্স ৪৬, অক্ষর প্যাটেল ৪-৬৮)
ভারত: ৩৬৫/১০ (পন্থ ১০১, সুন্দর ৬০*, অ্যান্ডারসন ৩/৪০ )
ইংল্যান্ড: ১৩৫/১০ (লরেন্স ৫০, অক্ষর ৪৮/৫, অশ্বিন ৪৭/৫)
ভারত জয়ী ইনিংস এবং ২৫ রানে।

তৃতীয় টেস্ট গড়িয়েছিল পাঁচ সেশন। শেষ টেস্ট খতম হয়ে গেল তিন দিনের মধ্যেই। ইংল্যান্ডকে মোতেরায় চতুর্থ টেস্টে ইনিংস এবং ২৫ রানে হারিয়ে ভারত সিরিজ তো বটেই ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ওঠাও নিশ্চিত করে ফেলল। ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ২০৫ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ঝরে পড়ল মাত্র ১৩৫ রানে। এমনিতেই ১৬০ রানের লিডে এগিয়ে ছিল ভারত। ফলে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করতেই হল না কোহলি-পূজারাদের।

আর ভারতের জয়ে সেই অক্ষর-অশ্বিন জুটি। প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেটের পর অক্ষর দ্বিতীয় ইনিংসে সংগ্রহ করলেন ৫ উইকেট। অশ্বিনও দখল করলেন ৫ উইকেট। চলতি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রহকারীদের তালিকার শীর্ষেই দুই ভারতীয় স্পিনার। অশ্বিন ৩২ উইকেট এবং অক্ষরের সংগ্রহে ২৭ উইকেট।

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজটি যেন অস্ট্রেলিয়া সিরিজেরই পুনরাবৃত্তি। ডনের দেশে প্রথম টেস্ট হেরেও পরবর্তী তিন টেস্টের মধ্যে দু’টি জিতে সিরিজ পকেটে পুরেছিল টিম ইন্ডিয়া। তাও আবার ভাঙাচোরা দল নিয়েই। তারপর এই সিরিজেও প্রথম টেস্ট হেরেছিল ভারত। কিন্তু পরবর্তী তিনটি টেস্ট সহজেই জিতে নিলেন বিরাটরা। এই ম্যাচ শুরুর আগেই যাবতীয় পরিসংখ্যান পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল। ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে যেতে জয় কিংবা নিদেনপক্ষে ড্রয়ের দরকার ছিল টিম ইন্ডিয়ার। তবে ড্র নয়, ম্যাচের প্রথম দিন থেকেই জয়ের জন্য ঝাঁপিয়েছিলেন অশ্বিন-রাহানেরা। আর ম্যাচের রাশও ছিল তাঁদের হাতেই।

আরও পড়ুন: মাঠের বাইরে নয়া মাইলস্টোন বিরাট কোহলির, কুর্নিশ জানাল ICC

প্রথম দিনই ২০৫ রানে শেষ হয়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ডের ইনিংস। তবে ব্যাট করতে নেমে বিপাকে পড়ে গিয়েছিল ভারতও। কিন্তু ঋষভ পন্থ, ওয়াশিংটন সুন্দর, অক্ষর প্যাটেলের ব্যাট ভারতকে ১৬০ রানের গুরুত্বপূর্ণ লিড এনে দেয়। তবে ঋষভ শতরান করলেও, দুর্ভাগ্যবশত তিন অঙ্কে পৌঁছতে পারেননি সুন্দর। উলটোদিকে সবাই আউট হয়ে যাওয়ায় ৯৬ রানে অপরাজিত থাকেন ভারতীয় দলের এই অলরাউন্ডার।

এদিকে, ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকে ইংল্যান্ড। মাত্র ৬৫ রানেই ড্রেসিংরুমে ফিরে যান ছ’জন ইংরেজ ব্যাটসম্যান। এরপর ড্যান লরেন্স, বেন ফোকসরা কিছুটা লড়াই করলেও তা যথেষ্ট ছিল না। আসলে অক্ষর-অশ্বিনদের স্পিনের দাপটেই ১৩৫ রানে শেষ হয়ে যায় ইংরেজদের দ্বিতীয় ইনিংস। দুই স্পিনারই পাঁচটি করে উইকেট নিয়েছেন। অন্যদিকে, ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ রান লরেন্সের। তিনি ৫০ রান করেন।

আরও পড়ুন: ICC Ranking: তিন নম্বরে উঠে এলেন অশ্বিন, কেরিয়ারের সেরা টেস্ট র‍্যাঙ্কিং রোহিতের