সুস্থ হয়ে স্বমহিমায় কপিল,গল্ফ কোর্সে খেললেন চুটিয়ে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি হয়েছে সম্প্রতি। হৃদযন্ত্রের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরে ছোটখাট হার্ট অ্যাটাকও হয় ভারতের হয়ে প্রথম বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ী অধিনায়কের। ২৩ শে অক্টোবর হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া ‘হরিয়ানা হ্যারিকেন’ কপিল দেব রামলাল নিখঞ্জ টানা দু’‌দিনের চিকিৎসার পর ২৫ অক্টোবর বাড়ি ফিরেছিলেন। আজ সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে ফের নেমে পড়লেন গল্ফ কোর্সেও। বোঝালেন তিনি সত্যিই ‘হরিয়ানা হ্যারিকেন।’কপিলের এমন দ্রুত সুস্থ হয় দেখে যারপরনাই খুশি তাঁর সমর্থক সহ সকল ক্রীড়াপ্রেমীরাও।

অবসর জীবনের বেশিরভাগ সময়টাই কাটান গল্ফ কোর্সে। সময় পেলেই চলে যান গল্ফ কোর্সে।বৃহস্পতিবার টুইট করে নিজের গল্ফ খেলার ভিডিও পোস্ট করেন কপিল।

আরও পড়ুন :  বড়দিনে আসছে ‘কাকাবাবুর প্রত্যাবর্তন’, প্রকাশ্যে সৃজিত-প্রসেনজিৎ জুটির ৮ নম্বর ছবির পোস্টার

তিনি লেখেন ‘হ্যালো বন্ধুরা, ‌গল্ফ কোর্স বা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে এসে যে মজা সেটা ভাষায় প্রকাশ সম্ভব না। গল্ফ কোর্সে ফিরতে পেরে খুবই ভাল লাগছে। মজা করছি। বন্ধুদের সঙ্গে গল্ফ খেলছি। এভাবেই তো জীবন এগিয়ে চলে।

হাসপাতাল থেকে তিনি তাঁর বার্তায় লিখেছিলেন, ‘‌হাই সকলকে, আমার মন খুব ভাল আছে, আর আমি সেরে উঠছি। দ্রুত সেরে ওঠার পথেই র‌য়েছি আমি। আমার গলফ খেলায় ফেরার জন্য আর তর সইছে না আমার। আপনারা সবাই আমার পরিবারের অংশ।’‌

হাসপাতালের বেডে শুয়ে বুড়ো আঙুল উঁচু করে কপিল দেব সেদিনই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন। বুঝিয়ে দিয়েছিলেন,কি অসম্ভব মনের জোর তাঁর। সেই জোরেই তিনি ভারতকে বিশ্বজয়ী করেছিলেন।

২০০২ সালে উইজডেন কর্তৃক ‘শতাব্দীর সেরা ভারতীয় ক্রিকেটারে’ মনোনীত হন কপিল । ২০১০ সালের ১১ ই মার্চ, তাঁকে আইসিসি ক্রিকেট “হল অফ ফেমে” অন্তর্ভুক্ত করে।গ্যারি সোবার্স, রিচার্ড হ্যাডলি এবং ইমরান খানের সাথে তাকেও ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা অল-রাউন্ডার বলা হয়।

আরও পড়ুন : পোষ্যের গলার বেল্ট দিয়ে আত্মঘাতী অভিনেতা আসিফ বসরা, ধর্মশালার এক আবাসন থেকে উদ্ধার দেহ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest