অবসর নিচ্ছেন শ্রীলঙ্কার ফাস্ট বোলার লাসিথ মালিঙ্গা, জানিয়ে দিলেন দিনক্ষণ

নিউজ কর্নার ওয়েব ডেস্ক: বাংলাদেশ–শ্রীলঙ্কার আগামী একদিনের সিরিজের প্রথম ম্যাচের পরই অবসর নেবেন শ্রীলঙ্কার ফাস্ট বোলার লাসিথ মালিঙ্গা। সোমবার সন্ধ্যায় মালিঙ্গার অবসরের খবর সাংবাদিকদের জানান শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে। স্ত্রীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভ হয়ে সোমবার নিজেও অবসরের কথা জানিয়ে দেন মালিঙ্গা।

জুলাইয়ের ২৬ থেকে শুরু হচ্ছে শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশের তিন ম্যাচের সিরিজ। সেই সিরিজের দল ঘোষণাও করে শ্রীলঙ্কা। সেই দলে নাম ছিল মালিঙ্গার। কিন্তু প্রথম ম্যাচটিই কেবল মাত্র খেলবেন তিনি। সতীর্থ দিমুথকে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। সোমবারের শ্রীলঙ্কান দলের প্রেস কনফারেন্সে মালিঙ্গার অবসরের কথা জানান করুনারত্নে। তিনি বলেন, “আসন্ন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম ম্যাচটি খেলেই অবসর নেবেন মালিঙ্গা।” তবে, এ বিষয়ে দলের ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকদের সঙ্গে মালিঙ্গার কোনও কথা হয়েছে কি না, সে বিষয়ে তিনি ওয়াকিবহাল নন বলে জানান দিমুত।

২০১১-তে  টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেন মালিঙ্গা। কেবল মাত্র টি-টোয়েন্টি ও ওয়ান-ডে ক্রিকেটেই মাঠে দেখা যেত তাঁকে। একদিনের ইনিংসে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটের তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট সংখ্যা মালিঙ্গার ঝুলিতে। একদিনের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বোলারদের মধ্যে এপর্যন্ত মালিঙ্গা তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট নিয়েছেন। ২১৯টি ইনিংসে তিনি পেয়েছেন ৩৩৫টি উইকেট। ৫২৩টি উইকেট নিয়ে তালিকায় প্রথমে আছেন মুথাইয়া মুরলীধরণ এবং ৩৯৯টি উইকেট পেয়ে চামিন্ডা ভাস দ্বিতীয়। মোট ২১৯টি ম্যাচে ৩৩৫টি উইকেট নিয়েছেন মালিঙ্গা। মুথাইয়া মুরলীধরণের পরে তিনিই শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় বোলার, যিনি বিশ্বকাপে ৫০টি উইকেট নিয়েছেন। তার পাশাপাশি তিনি বিশ্বের একমাত্র বোলার, যাঁর ঝুলিতে বিশ্বকাপে দুটি হ্যাট্রিকের রেকর্ড আছে।

২০০৪ সালে সংযুক্ত আরব আমিরশাহির বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার হয়ে নিজের কেরিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেন মালিঙ্গা। প্রথম ম্যাচ থেকেই নিজের দুর্ধর্ষ বোলিং অ্যাকশনের জন্য সবার চোখে পড়েন তিনি। ২৯টি ম্যাচ খেলে ৫৬টি উইকেট পেয়ে বিশ্বের সফলতম বোলারদের তালিকায় মালিঙ্গা তৃতীয়। একই ম্যাচ খেলে তাঁর আগে আছেন ৭১টি উইকেট নিয়ে গ্রেন ম্যাকগ্রা এবং ৬৮টি উইকেট নিয়ে মুরলীধরণ। নিজের কেরিয়ারে ৩০টি টেস্ট খেলেছেন মালিঙ্গা। কিন্তু হাঁটুর চোটের জন্য ২০১১ সালে টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছিলেন তিনি।

২০১৯ বিশ্বকাপের আগে দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরানো হয় বছর ৩৫-এর পেসারকে। তার পর থেকেই তাঁর অভিমানের কথা কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল। তখনই গুঞ্জন ওঠে, বিশ্বকাপের পরেই হয় তো অবসর নেবেন তিনি। ২০১৯ বিশ্বকাপেও চেনা ছন্দেই দেখা গিয়েছে ‘স্লিঙ্গা মালিঙ্গা’কে। তবে, ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ চলাকালীনই অবসরের বিষয়ে চিন্তা ভাবনা শুরু করেন তিনি। তিনি বলেন, “প্রতিনিয়ত লড়াই চালিয়েছি আমি। এখন আমি ক্লান্ত। দেশে ফিরে নির্বাচকদের সঙ্গে কথা বলে আমি কিছু সিদ্ধান্ত নিতে চাই।” নির্বাচকদের সঙ্গে আলোচনা করেই আন্তর্জাতিক মঞ্চ থেকে বিদায়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানান তিনি। তার সঙ্গে নিজের দেশের মাটিতেই শেষ ম্যাচ খেলার ইচ্ছাও প্রকাশ করেন তিনি। বয়সের কারণেই সরে দাঁড়াতে চান তিনি।