গত বছর ব্রাজিলের ফুটবল তারকা নেইমারের সঙ্গে চুক্তি ভেঙে দিল নাইকি। এমন কাণ্ডের কারণ জানাল সেই সংস্থা। নেইমারের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছিল। সেই মামলার তদন্তে সাহায্য করতে রাজি হননি নেইমার।

ওই সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, “নেইমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা হয়েছে কারণ বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও তদন্তে সাহায্য করতে রাজি ছিল না এই ফুটবলার।” যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ‘ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল’ জানিয়েছে এই তথ্য।

তাদের প্রতিবেদন অনুযায়ী, নেইমারের বিরুদ্ধে তদন্ত করছিল নাইকি। অভিযোগ ছিল, নাইকির এক কর্মীকে যৌন হয়রানি করেছেন পিএসজি তারকা। সেই ঘটনা জানেন—এমন লোকের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৬ সালে নিউইয়র্কে নাইকির এক অনুষ্ঠানে এসেছিলেন নেইমার। তখন হোটেলে নিজের রুমে জোর করে সেই কর্মীকে যৌন হয়রানি করেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। নিজের বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের সেই দিনের কথা জানিয়েছিলেন নাইকির সেই মহিলা কর্মী। ২০১৮ সালে এ নিয়ে অভিযোগ করেন তিনি। পরের বছর বাইরের একটি আইনি প্রতিষ্ঠানকে এই অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব দেয় নাইকি।

আরও পড়ুন: কিং অব গোলস! বিশ্বের প্রথম ফুটবলার হিসেবে অনন্য নজির গড়লেন রোনাল্ডো

নাইকির জেনারেল কাউন্সেল হিলারি ক্রেন এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুরু হওয়া তদন্ত কার্যক্রমে সাহায্য করতে নেইমার অস্বীকৃতি জানানোয় নাইকি তাঁর সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করে।’ তদন্ত চলাকালীন নাইকির বিপণন ও প্রচারে নেইমারকে আর দেখা যায়নি। শেষ পর্যন্ত গত বছর আনুষ্ঠানিকভাবে ১৫ বছরের সম্পর্কে ছেদ টানে দুই পক্ষ। পরে আরেক ক্রীড়া সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান পিউমার সঙ্গে স্পনসর চুক্তি করেন নেইমার।

নেইমারের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, নাইকির সঙ্গে পিএসজি তারকার চুক্তি বাতিলের কারণ যৌন হয়রানির অভিযোগ ছিল না, ‘এই ভিত্তিহীন অভিযোগ নিয়ে কোনো দাবি পেশ করা হলে নেইমার তা মোকাবিলা করবে। এখন পর্যন্ত অবশ্য সেরকম কিছুই ঘটেনি।’

বাণিজ্যিক কারণে নাইকি নেইমারের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করেছিল বলে জানান সেই মুখপাত্র। ২০১৯ সালে নেইমারের বিরুদ্ধে একবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল। কিন্তু যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় সে বছরের আগস্টে অভিযোগটি খারিজ করে দেন আদালত।

আরও পড়ুন: চিনে শিলাবৃষ্টি ঝড়, ঠাণ্ডায় মৃত ২১ ম্যারাথন প্রতিযোগী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *