বিশ্বভারতীতে সেক্স র‍্যাকেট চলে! অগ্নিমিত্রার মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিলেন দলেরই সহকর্মী

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

মাত্র ৫ জন পড়ুয়াকে নিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গড়ে তোলা ছোট একটা স্কুল আজ কলেবরে বিরাট হয়ে হয়েছে বিশ্বভারতী, পশ্চিমবঙ্গের একমাত্র কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯০১ সালে প্রতিষ্ঠিত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেলার মাঠ এখন নাকি হয়ে উঠেছে দেহব্যবসা আর মাদক কারবারের ঠিকানা। শুক্রবার এমনই অভিযোগ তোলেন রাজ্য বিজেপি–র মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল।

শুক্রবার বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার পরই এই মন্তব্য করেন অগ্নিমিত্রা। ওদিকে, বিদ্যুৎ চক্রবর্তীও এর আগে এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, মেলা চলাকালীন মাঠে অসামাজিক কার্যকলাপ হয়। উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নরেন্দ্র মোদি। ওই মাঠ পরিদর্শনের পর অগ্নিমিত্রা পাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌সূর্য ডুবলেই এই মাঠে শুরু হয় দেহব্যবসা। গাঁজা, চরসের ঠেক থেকে শুরু করে বিভিন্ন মাদকের কারবারও হয়ে ওই মাঠে। এই কারণেই ওই খোলা মাঠ পাঁচিল দিয়ে ঘিরে ফেলার উদ্যোগ নেওয়া হয়। সাধারণ মানুষের এটা বোঝা উচিত যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যখন এই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস গড়ে তোলেন তখন এখানে এ সব কিছু ছিল না। কিন্তু এখন সময়ের সঙ্গে সব কিছুই বদলে গিয়েছে।’‌

আরও পড়ুন: ‘তবলিঘি জামাতের জমায়েত থেকেও করোনা ছড়িয়েছে’, সংসদে জানাল কেন্দ্র

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে নিয়োগ করা হয়েছে একটি বেসরকারি সংস্থাকে। তা ছাড়া ৫০ মিটারেরও কম দূরে শান্তিনিকেতন থানা। এই পরিস্থিতিতে রাজ্য বিজেপি মহিলা মোর্চার সভানেত্রীর এমন মন্তব্যে স্বাভাবিকভাবেই তীব্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গিয়েছে।

বিরূপ প্রতিক্রিয়া এসেছে দলের মধ্যে থেকেও। অগ্নিমিত্রা পালের দাবি উড়িয়ে বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা বলেন, ” আমি বিশ্বভারতীর ছাত্র ছিলাম। এখানে সেক্স র‍্যাকেট চলে বলে আমার জানা নেই। ফলে কে কী বলল সেটা আমি দেখতে যাব না। এখানে ছোট থেকে বড় হয়েছি। বিশ্বভারতী নিয়ে আমরা একসাথে লড়ছি। তবে তার মানে এটা নয় যে বিশ্বভারতীর নামে ভুলভাল বলব। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেপুটেশন খারাপ করে দেব। আমরা যারা এখানে বড় হয়েছি, তাদের কাছে বিশ্বভারতী একটা আবেগের নাম। আমি এখানে অন্তত কোনও দিন সেক্স র‍্যাকেট চলতে দেখিনি। ফলে কে কী বলেছেন, সে দায়িত্ব তাঁর।”

আরও পড়ুন: ‘গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে BJP, জারি থাকবে প্রতিবাদ’,৮ সাংসদের সাসপেনশন নিয়ে মুখ খুললেন মমতা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest