‘র‍িগিং যদি করতেই হয় আমরাই করব’, বেফাঁস মন্তব্যে হুমকির সুর সৌমিত্র খাঁ’র গলায়

সৌমিত্র একা নন, এদিন বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন আরেক বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ও।

তৃণমূল নয়, এবার বাংলায় যদি কেউ রিগিং করে তাহলে সেটা হবে বিজেপি। বুধবার পূর্ব বর্ধমানে পরিবর্তন যাত্রায় রীতিমতো বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ (Saumitra Khan)। পরিবর্তন যাত্রার সভা থেকে বাঁকুড়ার সাংসদ খণ্ডঘোষের তৃণমূল ব্লক সভাপতি ফাগুন ইসলাম ও বিধায়ক নবীনচন্দ্র বাগকে নিশানা করেন। বলে দেন, “যুবরা কেউ ফাগুন বা নবীনকে ভয় পাবেন না। ওরা হাঁটুর নীচে থাকবে। ৩০ হাজারের বেশি ভোট ওদের পেতে দেবেন না। রিগিং করতে হলে আমরাই করব।”

পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করে তিনি বলেন, “অভিষেক ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেখানে যাবে কালো পতাকা দেখাবেন। ওরা রাজ্যের কোনও উন্নয়ন করেনি। আগামী দিনেও করবে না।”

তৃণমূলের ‘খেলা হবে’ স্লোগান প্রসঙ্গে সৌমিত্র বলেন, “খেলা শেষ হয়ে গিয়েছে। আমরা জিতে গিয়েছি। নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করলেই কাপ আমরা নেব। এবার ২০০ আসন পাবো।” ওই সভা থেকেই বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী ‘খেলা হবে’ স্লোগান প্রসঙ্গে আরও আক্রমণাত্মক মন্তব্য করেন। তাঁর কথায়, “মে মাসে প্রথম সপ্তাহ থেকেই ভয়ঙ্কর খেলা হবে। ভোটে জিতে গেরুয়া আবির খেলা হবে। রাজ্যের আনাচে কানাচে খেলা হবে। দিদির পাশ থেকে এক এক করে তারা খসবে। খেলা হবে। দিদির একসময়ের প্রিয় তিন ভাই আমাদের দলে। বাকি রয়েছে তাঁর ঘরের ভাই। খেলা হবে।”

সৌমিত্রর এই বিতর্কিত মন্তব্য নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল। স্থানীয় ব্লক তৃণমূল সভাপতি ফাগুন ইসলাম বলেন, “বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ ঠিকই বলেছেন। সারা দেশে তাঁরা রিগিং করেই জিতছেন।”

আরও পড়ুন: কৃষক বিক্ষোভের জের, পঞ্জাবের পুর নির্বাচনে বিরাট জয় কংগ্রেসের, ধুয়ে মুছে সাফ বিজেপি

সৌমিত্র একা নন, এদিন বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন আরেক বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ও (Locket Chatterjee)। সোনার বাংলা তৈরির লক্ষ্যে লকেট মহিলাদের অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার নিদান দিয়েছেন। এদিন হুগলির ধনেখালির গোয়াইতে এক জনসভায় লকেট বলেন, “গোটা রাজ্য নবান্নের নির্দেশে চলেছে। তাই পুলিশ প্রশাসনকে বিশ্বাস না করে যদি কোথাও অন্যায় দেখেন, মহিলারা অস্ত্র নিয়ে সামনে নামবেন।” ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের উদাহরণ টেনে বিজেপি নেত্রী বলেন, “সেসময় কি ধরনের নোংরামি, সন্ত্রাস করেছে আমি দেখেছি। বাংলার মহিলারা হাতে বটি, লাঠি, হাতা, খুন্তি, ঝাঁটা নিয়ে দৌড়েছেন। এবারে তা হবে না। তাই অন্যায় দেখলে মহিলারা রান্নার যা আছে তাই হাতে নিয়ে পরিবারকে বাঁচাতে রাস্তায় নেমে লড়াই করতে হবে, প্রতিরোধ করতে হবে।”

পূর্ব বর্ধমানের এই সভায় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী, সাংসদ এস এস অহলুওয়ালিয়া-সহ বিজেপি নেতৃত্ব।বুধবার পরিবর্তন যাত্রার রথ বের হয় মেমারি থেকে জামালপুর হয় রথ পৌঁছায় রায়নার শাকটিয়ায়। সেখানে বিজেপির পরিবর্তন যত্রার সভা হয় এরপর রায়নার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে রথ পৌঁছায় খণ্ডঘোষে। এর আগে পরিবর্তন যাত্রা রথ কাটোয়া কেতুগ্রাম মঙ্গলকোট পূর্বস্থলী উত্তর দক্ষিণ কালনা মন্তেশ্বর বিধানসভা এলাকা পরিক্রমা করে। সেই কর্মসূচিতে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সহ রাজ্য ও জেলা নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: রাজ্যের মন্ত্রী জাকির হোসেনকে লক্ষ্য করে বোমা, পায়ে একাধিক স্প্লিন্টার, অস্ত্রোপচারের জন্য ভোররাতে আনা হল SSKM-এ