বহু প্রতীক্ষিত করোনার ভ্যাকসিনের ড্রাই রান রাজ্যে শুরু, প্রথম মহড়া হাসিরানি সরকারের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

নতুন বছরের শুরুতে করোনার নয়া স্ট্রেন যেমন চোখ রাঙাচ্ছে, তেমনই আশার আলো দেখাচ্ছেন ভ্যাকসিন নির্মাতারাও। শুক্রবারই দেশে প্রথম করোনা প্রতিষেধক হিসাবে বিশেষজ্ঞ দলের অনুমোদন পেয়েছে কোভিশিল্ড। শনিবার করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় দফার ড্রাই রান শুরু হচ্ছে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে। এর মধ্যে রয়েছে বাংলাও। রাজ্যের দত্তাবাদ, মধ্যমগ্রাম ও আমডাঙায় শুরু হয়েছে এই ড্রাই রান।

কথামতো এদিন সকালে দত্তাবাদে শুরু হয় করোনার ভ্যাকসিনের ড্রাই রান। প্রথম দিন বিধাননগর এলাকায় ২৫ জনকে বেছে নিয়ে তাঁদের ভ্যাকসিন (Vaccine) প্রয়োগ করা হয়েছে। এই ২৫ জনের মধ্যে রয়েছেন সব ধরনের মানুষ। রয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী থেকে পুরকর্মী এবং সাফাইকর্মীরাও। এদিন ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রথম মহড়া দিলেন বিধাননগর পৌরসভার স্বাস্থ্যকর্মী হাসিরানি সরকার। দত্তাবাদ কেন্দ্রে আজকের ড্রাই রান শেষে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষ পর্যবেক্ষক পুনীত মিশ্রা জানান যে, “আজকের মতো সম্পূর্ণ। প্রথমদিনের ড্রাই রান সন্তোষজনক।”

মূলত ৩টি ঘর রাখা হয়েছে সমগ্র প্রক্রিয়ার জন্য। যাঁদের ওপরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হচ্ছে তাঁদের থার্মাল চেকিং-এর (Thermal Checking) পর লাইন দিয়ে ড্রাই রান কেন্দ্রে ঢোকানো হচ্ছে। প্রথমে তাঁরা যাচ্ছেন ওয়েটিং রুমে। তারপর তাঁদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ভ্যাকসিন রুমে, এবং সব শেষ তাঁরা যাচ্ছেন অবজারভেশন রুমে। ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর সেখানে ৩০ মিনিট ধরে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে তাঁদের।

আরও পড়ুন: Scholarship 2020-21: সরকারি স্কলারশিপের জন্য আবেদনের সময়সীমা বৃদ্ধি, দেখে নিন নয়া দিনক্ষণ

এই প্রসঙ্গে এক আধিকারিক জানান, গাইডলাইন অনুয়ায়ী প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। ৩টি ঘর রয়েছে। যাঁরা ভ্যাকসিন নেবেন তাঁরা পরিচয় নিশ্চিত করার পর একে একে আসছেন। ভ্যাকসিনেশনের পরে তা ডিজিটালি আপলোড করা হচ্ছে। তারপর সেই ব্যক্তিকে ৩০ মিনিট ধরে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। যদি কোনও রকম সমস্যা দেখা দেয় তাহলে যাবতীয় ব্যবস্থা রয়েছে, তাছাড়াও সেই ব্যক্তিকে নিকটবর্তী হাসপাতালেও পাঠানো হতে পারে।

ভ্যাকসিনের ড্রাই রান শুরু হয়েছে দেশের অন্যান্য রাজ্যেও। দিল্লিতে জিটিবি হাসপাতালে ড্রাই রান প্রক্রিয়া পরিদর্শন করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। এদিন দেশবাসীর উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বার্তা, “প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের প্রতিটি নাগরিককে কেভিড থেকে নিরাপদ রাখতে চায় সরকার। তাই কোনও গুজবে কান দেবেন না।” প্রসঙ্গত কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত ১৯,০৭৮ জন। ফরে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্য ১,০৩,০৫,৭৮৮। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২২ হাজার ৯২৬ জন। ফলে দেশে মোট সুস্থের সংখ্যা বেড়ে হল ৯৯,০৬,৩৮৭ জন। এই সময়ের মধ্যে দেশে মৃত্যু হয়েছে ২২৪ জনের। ফলে মৃত্যু বেড়ে হল ১,৪৯,২১৮। দেশে বর্তমানে অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ২,৫০,১৮৩।

আরও পড়ুন: সারা দেশে বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিন, ঘোষণা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest