২৩ জানুয়ারি ‘দেশনায়ক দিবস’, নেতাজির নামে মনুমেন্ট, জাতীয় বিশ্ববিদ্যলয়; তাঁর জন্মলগ্নে শঙ্খ বাজানোর ডাক মমতার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মলগ্নে এবার রাজ্যজুড়ে বেজে উঠবে সাইরেন-শঙ্খ।  সুভাষচন্দ্রে নামে বিশ্ববিদ্যালয়, মনুমেন্ট তৈরিরও দাবি জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি কেন্দ্রের উপর চাপ বাড়িয়ে ওই দিনটি জাতীয় ছুটি ঘোষণার দাবিও ফের এক বার তুললেন তিনি। সোমবার নেতাজির ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উদ্‌যাপন নিয়ে নবান্নে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী।

সোমবারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন নেতাজির পৌত্র সুগত বসু, নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তি। হাজির ছিলেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরাও। বৈঠকে উঠে এসেছে নেতাজির জন্মজয়ন্তী উদ্‌যাপন নিয়ে একগুচ্ছ পরিকল্পনার কথা।

এদিন মমতা বলেন, ‘‌ওই দিন আমরা ঠিক ১২টায় শ্যামবাজার পাঁচমাথার মোড়ে জমায়েত হয়ে যাব। নেতাজির যে জন্ম সময় অর্থাৎ দুপুর ১২টা ১৫–তে সারা বাংলা জুড়ে সাইরেন বাজবে। সাইরেন বাজার সঙ্গে সঙ্গে মিছিল শুরু হবে। রেড রোডে নেতাজির মূর্তির পাদদেশে শেষ হবে মিছিল। পুলিশের ব্যান্ড থাকবে।’‌

সারা বাংলা তথা ভারতবর্ষ ও সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বাঙালি ও ভারতীয়দের জন্য মমতার বার্তা, ‘‌বেলা ১২টা ১৫ মিনিটে, নেতাজিকে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে শঙ্খ বাজাবেন, উলুধ্বনি দেবেন। মুসলিমরা আজানের মতো কিছু একটা করতে পারেন। সব সম্প্রদায় মিলে এটা আমরা করব।’‌

আরও পড়ুন: ‘বাড়ি বাড়ি যাও, জনসংযোগ বাড়াও’ কর্মসূচি শুরু করছে সিপিএম

এর পাশাপাশি নেতাজিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে একগুচ্ছ উদ্যোগের কথা এদিন ঘোষণা করেন মমতা। তিনি জানান, ‘‌নেতাজির নামে মনুমেন্ট করা হবে। সেটা রাজারহাটের দিকে হতে পারে। তার নাম হবে ‘‌আজাদ হিন্দ ফৌজ’‌ মনুমেন্ট।’‌ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নামে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় করার কথাও ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্রকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, ‘‌এই বিশ্ববিদ্যালয় আমরাই করব। কারও কাছে টাকা চাইব না, ভিক্ষা চাইব না।’‌

১৯৩৮ সালে প্ল্যানিং কমিশন গঠন করেছিলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। সেই কথা মনে করিয়ে এবং কেন্দ্রের ‘‌নীতি আয়োগ’‌–এর কটাক্ষ করে এদিন মমতা ঘোষণা করেন, ‘‌আমরা বাংলা প্ল্যানিং কমিশন শুরু করব। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে কাজ করবে এই কমিশন। কেউ মানবে, কেউ মানবে না। তাতে আমাদের কিছু যায় আসে না।’‌

মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও জানান, ‘‌২৬ জানুয়ারির প্যারেডে নেতাজিকে উৎসর্গ করে থাকবে একটি বিশেষ ট্যাবলো। আজাদ হিন্দ ফৌজের নামে বিশেষ ব্যান্ডে করবে কলকাতা পুলিশ। ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবসের প্যারেড এবার সম্পূর্ণ উৎসর্গ করা হবে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে।’‌ নেতাজিকে নিয়ে স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি তৈরি করার কথা বলেছেন তিনি। নেতাজি ভবনে সেই তথ্যচিত্র দেখানো হবে।

কেন্দ্রের উপর চাপ বাড়িয়ে মমতা এ দিন বলেন, ‘‘ব্যক্তিগত ভাবে আমার মনে হয়, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে নিয়ে আমরা তেমন গুরুত্বপূর্ণ কিছু করতে পারিনি। ২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্মদিনকে জাতীয় ছুটি হিসাবে ঘোষণার জন্য কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছি। এটা আমার দাবি।’’

আরও পড়ুন: কাটল না বৈশাখীর গোঁসা, মিছিলে নেই শোভন, BJP-র হুঙ্কার পরিণত হল বিড়ম্বনায়

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest