‘দলের সমর্থকদের ফেসবুক-হোয়্যাটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট ডিলিট করা হয়েছে’, এবার সংস্থাকে চিঠি তৃণমূলের

ফেসবুকের সঙ্গে বিজেপির অশুভ আঁতাতের আভিযোগ উঠেছে আগেই। ভোট কিভাবে বিজেপি ফেসবুককে ব্যাবহার করেছে সে অভিযোগও উঠে। জেনেশুনে বিজেপি নেতাদের বিদ্বেষপ্রচার চালাতে দিয়েছে ফেসবুক। এমন কথা লেখা হয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে। পরে টাইম ম্যাগাজিনেও এমন কথা লেকে হয়েছে। যা নিয়ে চেইপ রয়েছেন জুকেরবার্গ। কংগ্রেসের তরফে সংস্থায় চিঠিও দেওয়া হয়েছে। এবার চিঠি দিল তৃণমূল।

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসের আগে দলের সমর্থকদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ও পেজ ডিলিট করে দেওয়া হয়েছে। মুছে দেওয়া হয়েছে হোয়্যাটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট। এমনই অভিযোগ তুলে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে ফেসবুককে চিঠি দেওয়া হল।

আরও পড়ুন :  জাতীয় শিক্ষা নীতি, NEET এবং JEE পরীক্ষার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার দাবিতে পথে SIO

চিঠিতে তৃণমূলের জাতীয় মুখপাত্র তথা রাজ্যসভা সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়ান লিখেছেন, ‘পূর্ব নির্ধারিত প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানের আগে কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড লঙ্ঘনের জন্য (পড়ুন অভিযোগে) হোয়্যাটসঅ্যাপ ও ফেসবুক থেকে টিএমসি (তৃণমূল কংগ্রেস) সমর্থকদের শয়ে শয়ে পেজ ও অ্যাকাউন্ট মুছে দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই।’

চিঠিতে একেবারে স্পষ্ট ভাষায় ডেরেক জানিয়েছেন, গত বছরই ফেসবুকের ভারতীয় শাখা এবং বিজেপির মধ্যে ‘যোগসাজশ’-এর বিষয়টি তুলে ধরেছিল তৃণমূল। আর তৃণমূলের সেই মন্তব্যে সম্প্রতি সিলমোহর দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের বিভিন্ন প্রতিবেদন।

গত বছর সংসদে ডেরেক বলেছিলেন, ‘এনডিএ-এর (বিজেপি ও তার জোটসঙ্গীর) একটি লুকানো সঙ্গী, গোপন বন্ধু আছে। ভারতে ফেসবুকের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ হল প্রকৃতপক্ষে বিজেপির প্রচার ম্যানেজার। ফেসবুকের দিল্লি অফিস তো কার্যত (বিজেপির) সম্প্রসারিত আইটি সেল। বিজেপি বিরোধী কনটেন্টের সেন্সর করেছে ফেসবুক।’

যা রটে তা কিছুটা বটে ! এমন মনে করছেন অনেকেই। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে জুকেরবার্গের কোলাকুলি নিছক সহ্য ছিলনা বলে মনে করছেন তাঁরা। যেভাবে ফেসবুক বিজেপি নেতাদের বিদ্বেষ ছড়াতে দিয়েছে তাতে এটি একটি ওপেন সিক্রেট বলে মনে করছেন বিরোধীরা। নরেন্দ্র মোদীর দ্বিতীয়বার লোকসভা ভোট জয়ে প্রচার মাধ্যমের ভূমিকা কম ছিল না।

আরও পড়ুন : করোনা আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় মৃত্যু হল আরও ১ চিকিৎসকের