রক্ষক–ভক্ষক–তক্ষক তিন ভাই!‌ মেদিনীপুরের মাটি থেকে সিপিএম–বিজেপি–কংগ্রেসকে তোপ মমতার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

বিরোধী নেত্রী থাকার সময় তিনি বলেছিলেন, কংগ্রেস হল সিপিএমের বি–টিম। বাংলার নেত্রীর সেই ভবিষ্যদ্বাণী এবং দাবি মিলে গিয়েছে বলে তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশের বক্তব্য। কারণ এই রাজ্যে তাঁরা জোট করে লড়াই করছে। এবার একুশের নির্বাচনী প্রচারের সুর বেঁধে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মেদিনীপুরের কলেজ মাঠের সভা থেকে একযোগে সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপ্যে কড়া আক্রমণ শানালেন তিনি।

২৫ নভেম্বর বাঁকুড়ায় জনসভা করেছিলেন দলনেত্রী। তার পর সোমবার মেদিনীপুরের কলেজ মাঠে। এর মাঝে শুভেন্দু অধিকারীকে ঘিরে জল্পনার জল গড়িয়েছে অনেক। সম্প্রতি কোচবিহারের বিধায়ক মিহির গোস্বামী বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এই আবহে দলনেত্রীর জনসভা যে ভিন্ন বার্তাবহ হয়ে উঠতে পারে, তা স্পষ্ট বুঝতে পেরেছিলেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সোমবারের সভা থেকে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিজেপিকে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই আক্রমণ করেছেন মমতা। দিল্লিতে কৃষি আইন বাতিল নিয়ে বিক্ষোভ জারি। দেশের রাজধানীতে কৃষক বিক্ষোভকে সমর্থন করে বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলনের স্রোতটা আগেই রাজ্যে টেনে এনেছিলেন সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম আন্দোলনের নেত্রী। মেদিনীপুর থেকে দিল্লির কৃষকদের ফের এক বার বার্তা দিয়েছেন তিনি। বিজেপিকে আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়িয়ে বলেন, ‘‘কৃষিপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছে। আইন করে কৃষকদের ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া হচ্ছে।’’ রেল, প্রতিরক্ষা, ব্যাঙ্ক, কয়লা-সহ একের পর এক সরকারি ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ নিয়ে কেন্দ্রকে বিঁধেছেন। তাঁর কটাক্ষ, ‘‘সব বিক্রি হলে গেলে কী থাকবে?’’

আরও পড়ুন: ব্ল্যাকমেল করে লাভ নেই, নাম না করে শুভেন্দুকে তোপ নেত্রীর, জেনে নিন মমতা- বার্তা…

ভোটের মুখে বিজেপি টাকা বিলোয় বলে গত লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই অভিযোগ করে আসছেন। সোমবারও সেই অভিযোগ করেছেন। এলাকায় নজর রাখার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের ভার দিয়েছেন মমতা। এই সূত্রেই ‘বহিরাগত’ ইস্যু টেনে এনেছেন তৃণমূলনেত্রী। তাঁর অভিযোগ, ‘‘বহিরাগতদের দিয়ে বাংলা দখলের চক্রান্ত করছে বিজেপি। কিন্তু বাংলা গুজরাত হবে না।’’ তৃণমূল নেতাকর্মীদের ‘ষড়যন্ত্র’ রোখার আহ্বানও জানিয়েছেন। মমতার বার্তা, ‘‘বিজেপির কাছে সব আছে। কিন্তু তৃণমূলের মতো কর্মী নেই।’’ মেদিনীপুরের মঞ্চে দাঁড়িয়ে দেশ থেকে বিজেপিকে উৎখাতের ডাকও দিয়েছেন মমতা।

রাজ্যে বিজেপির বাড়বাড়ন্ত নিয়ে ফের এক বার সিপিএম এবং কংগ্রেসকে বিঁধছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। বিজেপি, সিপিএম এবং কংগ্রেসকে তাঁর তোপ, ‘‘রাজ্যে ৩ ভাই এক হয়েছে। সিপিএম এক সময় কঙ্কালকাণ্ড, সিঙ্গুর, নেতাই, কেশপুর,  নন্দীগ্রাম করেছিল। আজ ওরাই বিজেপি হয়েছে।’’ ৩ বিরোধীকে একাসনে বসিয়ে মমতার কটাক্ষ, ‘‘এক জন রক্ষক, এক জন ভক্ষক, আর এক জন তক্ষক।’’ ‘‘সিপিএম, কংগ্রেস এবং বিজেপি ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমেছে’’, অভিযোগও তাঁর।

গত লোকসভা ভোটে জঙ্গলমহলে একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তার করেছিল গেরুয়াশিবির। ফলে রাজনৈতিক ভাবেই তৃণমূলের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই এলাকা। সোমবার মেদিনীপুর কলেজ মাঠে মমতার সভায় তিলধারণের ঠাঁই ছিল না। নির্বাচনে জঙ্গলমহলে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র হয়ে উঠতে পারেন ছত্রধর মাহাতো। মমতার সভার মূল মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন তিনি। মমতার ব্যাখ্যা, ‘‘ছত্রধরকে মাওবাদী তকমা দিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছিল।’’ ছত্রধর বলছেন, ‘‘প্রথম মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সরাসরি রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করলাম। আমি এতে খুশি।’’

আরও পড়ুন: সবাই সরকারি পরিষেবা পাচ্ছেন তো? দেখতে বসিরহাটবাসীর ‘দুয়ারে দুয়ারে’ সাংসদ নুসরত জাহান

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest