মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অবস্থার অবনতি, ভর্তি হাসপাতালে

শোভনদেববাবুর করোনা সংক্রমণের খবরে উদ্বেগ ছড়ায় রাজনৈতিক মহলে।

করোনার উপসর্গ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হলেন পশ্চিমবঙ্গের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। তাঁকে দক্ষিণ কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি তাঁর করোনা ধরা পড়ে। মৃদু উপসর্গ থাকায় তাঁকে হোম আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু উপসর্গ বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হতে হল তাঁকে।

৭৭ বছর বয়সি শোভনদেব হাইপারটেনশনে ভোগেন। এই কো-মর্বিডিটির জন্যই বিশেষ ভাবে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে তাঁকে। চিকিৎসক সৌতিক পাণ্ডা, সপ্তর্ষি বসুর তত্ত্বাবধানে রয়েছেন তিনি। ফুসফুস রোগ বিশেষজ্ঞ অঙ্কন বন্দ্যোপাধ্যায়ও তাঁকে পর্যবেক্ষণ করছেন। আপাতত শোভনদেবের অবস্থা স্থিতিশীল বলেই জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: এক দশক আগে মমতার ঘোষিত দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর উদ্বোধন করলেন মোদী

মঙ্গলবার বিকেলে হাসপাতালের তরফে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে জানানো হয়, গত দু’দিন হালকা জ্বর এবং দুর্বলতা ছিল বলে পরিবারের তরফে জানানো হলেও, এই মুহূর্তে জ্বর নেই শোভনদেবের। সজাগ রয়েছেন তিনি। সমস্ত অঙ্গপ্রত্যঙ্গ স্বাভাবিক। সজাগ রয়েছেন তিনি। এমনকি বাড়তি অক্সিজেনও দিতে হয়নি। তবে বেশ কিছু পরীক্ষা করা হচ্ছে তাঁর। প্রাথমিক ভাবে কিছু ওষুধ দেওয়া হয়েছে দেখে। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।

শোভনদেববাবুর করোনা সংক্রমণের খবরে উদ্বেগ ছড়ায় রাজনৈতিক মহলে। নিজেই টুইট করে করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন তিনি। তার পর ৫ দিন হোম আইসোলেশনে ছিলেন তিনি। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার থেকে অত্যাধিক দুর্বলতা ও গায়ে ব্যাথা বোধ করতে থাকেন তিনি। এর পরই দক্ষিণ কলকাতার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে।

আরও পড়ুন: বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগ, তড়িঘড়ি সদস্যপদ বাতিল করল দল