Bitcoin-এর মত ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেনের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল সুপ্রিম রায়ে

নয়াদিল্লি: ক্রিপ্টোকারেন্সির ওপর রিজার্ভ ব্যাঙ্ক যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল, সেটাকে খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট।বুধবার বিচারপতি রোহিংটন নরিম্যানের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় দিয়েছে। এছাড়াও বেঞ্চে ছিলেন অনিরুদ্ধ বসু ও ভি রামাসুব্রমণিয়ম।

এ দেশে ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি ছিল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার (আরবিআই)। ফলে এত দিন এর মাধ্যমে লেনদেনে বৈধতা ছিল না।২০১৮ সালের এপ্রিলে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে কড়াকড়ি করে। বিভিন্ন ব্যাঙ্ক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে বিটকয়েন সংক্রান্ত পরিষেবা দিতে নিষেধ করে দেয়। সরকার মনে করত, ভারচুয়াল কারেন্সি বেআইনি। তার হাত থেকে অর্থনীতিকে বাঁচাতেই রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ওই নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেনের উপর আরবিআইয়ের নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্তের অধিকার নিয়ে আদালতে প্রশ্ন তোলেন আইএএমআই-র আইনজীবী অসীম সুদ। তাঁর অভিযোগ, ক্রিপ্টোকারেন্সির লেনদেন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব নয় বলে আরবিআই যে নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত নেয়, তা ভিত্তিহীন। ক্রিপ্টোকারেন্সিকে ‘কারেন্সি’ বা মুদ্রা হিসাবে গণ্য করা উচিত নয় বলে জানান তিনি। এটি একটি লেনদেনের মাধ্যম বলে তাঁর মত।অন্যদিকে গ্রাহক স্বার্থ রক্ষা করতে ও দেশের পেমেন্ট সিস্টেম যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়ে যায়, তার জন্যে এই নিষেধাজ্ঞা প্রয়োজন বলেই জানায় আরবিআই।

আরও পড়ুন: এসে গেল হোয়াটসঅ্যাপের ‘ডার্ক মোড’, জেনে নিন কী ভাবে পাবেন এই নতুন থিম

দুই পক্ষের মতামত শুনে আরবিআইয়ের সিদ্ধান্তের বিপক্ষে রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট। আইনি স্বীকৃতি পাবে বিটকয়েন সহ অন্যান্য ভার্চুয়াল কারেন্সি।এই রায়ের ফলে স্বাভাবিক ভাবেই স্বস্তিতে ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ। যে সমস্ত প্রতিষ্ঠান, বিনিয়োগকারী বা ব্যবসায়ী এ ধরনের ডিজিটাল মুদ্রায় লেনদেন করে, তাঁরাও সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশকে স্বাগত জানিয়েছেন।

bitcoin

ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?
ক্রিপ্টোকারেন্সি হল ডিজিটাল মুদ্রা। যা কোনও দেশের সরকার বা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দ্বারা তৈরি হয় না। জটিল কম্পিউটার প্রোগ্রামিং-এর মাধ্যমে ক্রিপ্টোগ্রাফির অ্যালগরিদম মেনে একে তৈরি করতে হয়। এবং এর কেনবেচাও শুধু অনলাইনেই সম্ভব।

আরও পড়ুন: ১২ই মার্চ ভারতে লঞ্চ হতে চলেছে Redmi Note 9 এবং Redmi Note 9 Pro, দাম থাকবে মধ্যবিত্তের নাগালেই

বিটকয়েন কী?

বিটকয়েনহল বিশ্বের সর্বাধিক মূল্যের ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টোগ্রাফির প্রযুক্তি মেনে এই ডিজিটাল কারেন্সি তৈরি করা হয়।২০০৯ সালে প্রথম বিটকয়েন তৈরি হয় এবং পরের বছরেই ভার্চুয়াল জগতে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহৃত হয়। এই ক্রিপ্টোকারেন্সি এতটাই সুরক্ষিত এবং গোপনীয়, বাজার দ্বারা নিয়ন্ত্রণ হয় না। দেশের কোনও শীর্ষ ব্যাঙ্কেরও নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা নেই। কিন্তু ডলার, পাউন্ড কিংবা রুপি দিয়ে ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেন করা যায়। গত অক্টোবর মাস থেকে এখনও পর্যন্ত যে বিটকয়েন লেনদেন হয়েছে, তার মূল্য ১০ হাজার ডলার।