অতিরিক্ত মোবাইল ব্যবহারে হারাতে পারেন পৌরুষত্ব! কিভাবে বাঁচবেন জানুন

স্মার্টফোনের প্রতি আমাদের আসক্তি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, আমরা এক মুহুর্ত ফোন ছাড়া বাঁচার কল্পনা করতে পারিনা। তবে এই মোবাইলই ‘মিষ্টি বিষ’ হিসাবে কাজ করছে আমাদের জীবনে। আপনি নিশ্চই অবাক হচ্ছেন যে, দৈনন্দিন জীবনে এত প্রয়োজনীয় একটি জিনিসকে আমরা বিষের সাথে কেন তুলনা করছি। আসুন জেনে নেই মোবাইল আমাদের জন্য ক্ষতিকর কেন?

মোবাইল রেডিয়েশনের ফলে মস্তিষ্কের ক্যান্সার, একাগ্রতা, চোখের সমস্যা, স্ট্রেস বৃদ্ধি, নিউরোডিজেনারেটিভ ডিসঅর্ডার, হার্টের ঝুঁকি, প্রজনন ক্ষমতা এবং শ্রবণ প্রতিবন্ধকতার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। এমস এবং ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর) এক গবেষণায় দাবি করা হয়েছে যে, মোবাইল রেডিয়েশনের কারণে মানুষ বধির ও হতে পারে এবং হারিয়ে যেতে পারে পৌরুষত্বও।

ভারতে মোবাইল ফোন থেকে নির্গত রেডিয়েশনের মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে 1.6 W/kg। একে SAR ভ্যালু দ্বারা প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি না বুঝে থাকেন SAR ভ্যালু আসলে কি? তাহলে বলি, এটি হলো রেডিয়েশনের মাত্রা যেটি মোবাইল ফোন থেকে বার হলেও শরীরে কোন প্রভাব ফেলে না। সুতরাং কোনো স্মার্টফোনের SAR ভ্যালু যত কম হবে তত সেটি আমাদের শরীরের জন্য ভালো।আপনার ফোনের সার ভ্যালু জানতে *#07# ডায়েল করুন।

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপে এল অ্যানিমেটেড স্টিকার ও QR Code ফিচার, জেনে নিন কিভাবে ব্যবহার করবেন

কিভাবে ক্ষতিকারক মোবাইল ফোনের রেডিয়েশন থেকে নিজেকে রক্ষা করবেন :

তারযুক্ত হেডফোন ব্যবহার করুন :

বেশ কয়েকটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে মোবাইল ফোনে 50 মিনিটের বেশি কথোপকথনে আমাদের মস্তিষ্কের উপর প্রভাব পড়ে। কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা মোবাইলে কথা বলতে থাকি। তাই আমাদের উচিত হেডফোন ব্যবহার করা। এখন বাজারে ব্লুটুথ হেডফোনও চলে এসেছে। তবে এটি কতটা নিরাপদ তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। সেই কারণে আপনি কথা বলার সময় তারযুক্ত হেডফোন ব্যবহার করুন। এরফলে আপনার থেকে ফোনটি দূরে থাকলো এবং রেডিয়েশন কোনো প্রভাবও ফেলতে পারলো না ।

অ্যান্টি রেডিয়েশন কেস :

রেডিয়েশন থেকে মুক্তি দিতে এমন কিছু সংস্থা রয়েছে যা অ্যান্টি-রেডিয়েশন কেস তৈরী করেছে। এই কেসগুলোর বাইরেটা সিন্থেটিক এবং ভিতরটা মাইক্রোফাইবার দ্বারা তৈরী । এই উপকরণগুলি আপনার ফোনকে সুরক্ষিত করার পাশাপাশি রেডিয়েশনকে প্রতিরোধ করে।

পকেটে ফোন রাখবেন না:

আমরা সাধারণত ব্যবহারের পর মোবাইল ফোন পকেটেই রাখি (বিশেষ করে বুক পকেটে)। কিন্তু আপনি কি জানেন মোবাইল ব্যবহার না করলেও এর থেকে রেডিয়েশন বার হয়? সুতরাং মোবাইল ফোনকে পকেটে রাখা মোটেই নিরাপদ নয়। এই কারণে আপনি যখন ফোন ব্যবহার করছেন না, তখন উচিত হয় এটিকে ব্যাগে রাখা নয়তো হাতে রাখা।

খারাপ নেটওয়ার্ক যুক্ত স্থানে কম ফোন ব্যবহার করুন :

যেসমস্ত জায়গায় নেটওয়ার্ক সিগন্যাল কম পাচ্ছেন সেখানে মোবাইল কম ব্যবহার করাই উচিত। কারণ দুর্বল নেটওয়ার্ক যুক্ত স্থানে আপনার ফোন নেটওয়ার্ক খোঁজার প্রানপন চেষ্টা করে। আর তখনই ফোন থেকে সবচেয়ে বেশি রেডিয়েশন বার হয়। আর সেই কারণেই মেট্রো বা দূরে ট্রেনে কোথাও যাওয়ার সময় যত কম ফোন ব্যবহার করা যায় তত ভালো।

আরও পড়ুন: দাম মাত্র ৪৫০০! খুবই অল্পদামে ঝড় তুলতে আসছে Reliance Jio-র নতুন ফোন