করোনার জেরে অবশেষে পিছিয়ে গেল টোকিও অলিম্পিক, সামনে এল নতুন দিনক্ষণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ওয়েব ডেস্ক: অবশেষে টোকিও অলিম্পিকের দিনক্ষণ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি। সোমবার জাপানের অলিম্পিক সংস্থার কর্তাদের সঙ্গে আলোচনার পর ঠিক হয়েছে এ বছর যেমন সূচি ছিল, আগামী বছর কমবেশি তেমনটাই রাখা হবে। এ বছরের মতো আগামী বছরও অলিম্পিক শুরু হবে জুলাই মাসে। ২৩ জুলাই শুরু হয়ে শেষ হবে ৮ আগস্ট। অলিম্পিকের ক্রীড়াসূচিতে কোনও কাটছাঁট করা হচ্ছে না।শীঘ্রই সরকারিভাবে এই সিদ্ধান্ত ঘোষিত হবে।

আরও পড়ুন: মানবিক বাইচুং! লকডাউনে আটকে থাকা শ্রমিকদের আশ্রয় দিলেন নিজের বাড়িতে

২০২১ সালে অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হলেও অলিম্পিক মশালে ‘Tokyo 2020’ তকমাই থাকবে। এবং এই অলিম্পিক মশাল ২০২১ সাল পর্যন্ত আশার আলো হয়ে জ্বলবে। ১২৪ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জেরে পিছিয়ে গেল অলিম্পিক। এর আগে ১৯১৬ ও ১৯৪০ সালে প্রথম এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জন্য বন্ধ হয়েছিল এই প্রতিযোগিতা। ১৮৯৬ সালে শুরু হয়েছিল আধুনিক অলিম্পিক।

Beijing Olympics Artists

ইতিমধ্যেই করোনার জেরে বাতিল হয়েছে একের পর এক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। ইউরোপের একাধিক দেশের হাই প্রোফাইল ফুটবল টুর্নামেন্ট থেকে শুরু করে আজলান শাহ হকি, শুটিং বিশ্বকাপের মতো ইভেন্ট বাতিল করে দিতে হয়েছে। ইউরোপ এবং ব্রাজিলে সমস্ত রকম ফুটবল টুর্নামেন্ট এখন বন্ধ। পিছিয়ে দিতে হয়েছে ইউরো কাপ, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ইউরোপা লিগের মতো টুর্নামেন্ট। এবার সেই পথ ধরে পিছিয়ে গেল অলিম্পিকও।

আরও পড়ুন: ডান্ডা মেরে থামানো যাবে না করোনা, বুঝতে হবে এদেশের পুলিশকে

এবছরের অলিম্পিক আগামী ২৪ জুলাই থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জন্য তা স্থগিত করে দিতে হয়েছে। গোটা বিশ্বেই মারক প্রভাব বিস্তার করেছে করোনা। টোকিওতেও করোনার প্রভাব যথেষ্ঠ লক্ষণীয়। এই পরিস্থিতিতে জাপানের স্থানীয়রাদেরও দাবি ছিল, অলিম্পিক বাতিল করতে হবে। তাঁদের ধারণা, অলিম্পিকের জন্য হাজার হাজার মানুষ জাপানে গেলে তাঁদের সঙ্গে করোনাও ছড়িয়ে পড়তে পারে। কারণ, প্রশাসনের পক্ষে এত মানুষের দিকে নজর রাখা সম্ভব নয়। করোনার জেরে বিশ্বের বৃহত্তম স্পোর্টিং ইভেন্ট বাতিল করার দাবি জানাচ্ছিল অংশগ্রহণকারী দেশগুলিও। সেই সব দাবি মেনে গত সপ্তাহেই অলিম্পিক স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। অলিম্পিকের পিছনে এখনও পর্যন্ত ১৩ হাজার কোটি ডলার খরচ করেছে জাপান। ৩ হাজার কোটি টিকিট এবং স্পনসরদের কাছ থেকে তোলা সম্ভব হয়েছে। আয়োজকদের ধারণা, আগামী বছর একই সময়ে অলিম্পিক আয়োজন করলে টিকিট এবং স্পনসরদের টাকা ফেরত দিতে হবে না। কম হবে লোকসান। সে সেকারণেই একই সময় ইভেন্ট আয়োজনের ভাবনা।

আরও পড়ুন: রাজ্যের ২২টি জেলায় হবে ‘করোনা হাসপাতাল’, নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত রাজ্যসরকারের

Gmail 7

 

 

 

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest