Over 40 camels barred from Saudi ‘beauty contest’ over Botox

কৃত্রিম রূপটানের অপরাধ, ‘বিউটি কনটেস্ট’ থেকে ব্যাড বাদ ৪০ উট!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

প্রতারণার অপরাধে সেই চমকপ্রদ কনটেস্ট থেকে বাদ পড়ল ৪০টি উট!

আরবদের কাছে উটের কদর অনেক। সবচেয়ে সুন্দর প্রাণী হিসেবে তারা উটকে বিবেচনা করেন। তারা উটকে এতোটাই ভালোবাসেন যে, প্রতিবছর আয়োজন করা হয় উটের সুন্দরী প্রতিযোগিতা। যেখানে অংশগ্রহণ করে হাজার হাজার উট। এদের মধ্য থেকেই বেছে নেওয়া হয় সবচেয়ে সুন্দর উটকে। অবাক করা বিষয় হলেও সত্যিই, সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে প্রতিবছর আল-ধাফরা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সারা উপসাগরীয় অঞ্চল থেকে আসা ৩০ হাজারেরও বেশি উট এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

ক্যামেল বিউটি পেজেন্ট নামক এই উৎসবের মূল আকর্ষণ হলো উটের সৌন্দর্য বিবেচনা করা। তবে কীভাবে উটের সৌন্দর্য বিচার করা হয়? উটের মালিক ও আল-ধাফরা আয়োজক কমিটির সদস্য আলি আল মানসুরির মতে, ‘বিচারকরা বড় মাথা, চওড়া ঘাড়, শক্ত কান, চওড়া গালের উট খুঁজে বের করেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘এক্ষেত্রে উটের শরীর লম্বা হতে হবে, কুঁজ ও পিঠ বড় হতে হবে। একইসঙ্গে উটের রং ও ভঙ্গিও গুরুত্বপূর্ণ।’ প্রতিযোগিতা দুটি পর্যায়ে পরিচালিত হয়। একটি হালকা রঙের আসায়েল জাতের জন্য ও অন্যটি কালো চামড়ার মাজাহিমের জন্য।

উটের মালিক খামিস মোহাম্মদ আল শরী বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ দ্বারা নিযুক্ত একটি বিশেষ কমিটি আছে, যারা প্রতিযোগিতার বিচার করেন। তারা সব উটকে এক কলমে বসিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়।’ তাদের মানদণ্ড পূরণকারী সেরা ১০টি উটকে বিজয়ী বলে গণ্য করা হবে। সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় উট জয়ী হলেও পুরস্কার ভোগ করেন মালিকরা। পুরষ্কার হিসেবে ৭ লাখ টাকা বা ১৮-৩০ হাজার দিরহামসহ বিলাসবহুল গাড়ি পান তারা। যদিও এটা শুধু টাকার বিষয় নয়। প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়া উট-মালিক পরিবারগুলোর মধ্যে এটি একটি গর্বের বিষয়।

অভিযোগ এতে  কৃত্রিমভাবে সৌন্দর্য বাড়ানোর প্রাথমিক অভিযোগ উঠেছিল ১৪৭টি উটের মালিকের বিরুদ্ধে। তবে যাচাই-বাছাই শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রতিযোগিতা থেকে ৪০টির বেশি উটের নাম বাদ দিয়ে দেন আয়োজকেরা।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest