ত্রাণে দুর্নীতি, কয়লা বা গরু পাচারে নাম উঠলে কড়া ব্যবস্থা, নেতাদের বার্তা তৃণমূলনেত্রীর

২০২০ সালে আমফান ঘূর্ণিঝড়ের পর ত্রাণ নিয়ে রাজ্যের শাসক দলের কোনও কোনও স্থানীয় নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। একের পর এক অভিযোগ শুনে বিরক্তি প্রকাশও করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

এবার আর কোনওরকম দুর্নীতি তিনি সহ্য করবেন না। মানুষ তাঁর ওপর আস্থা রেখেছে। তিনি সুশাসন দিতে চান। এদিন তা স্পষ্ট করে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। ‘দুয়ারে ত্রাণ’ কর্মসূচি নিয়ে কোনও রকম দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। শনিবার তৃণমূলের সাংগঠনিক বৈঠকে নেতা-মন্ত্রীদের কড়া বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে সতর্ক করে দিলেন— কয়লা, বালি বা গরু পাচার নিয়ে দলের কোনও নেতার বিরুদ্ধে যেন অভিযোগ না ওঠে।

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের জেরে দুর্গত মানুষদের সাহায্যের জন্য রাজ্য সরকার ‘দুয়ারে ত্রাণ’ প্রকল্প চালু করেছে। সমস্ত জেলা প্রশাসনকে আগেই সতর্ক করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেছিলেন, ত্রাণ বিলি নিয়ে যেন কোনও রকম পক্ষপাতিত্ব বা দুর্নীতির অভিযোগ না ওঠে। শনিবারের বৈঠকেও দলীয় নেতা-মন্ত্রীদের সে কথা আরও এক বার স্মরণ করিয়ে দিলেন মমতা।

আরও পড়ুন : পদ্মে ডামাডোল চলছেই, এ বার অর্জুনের তির মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশুকে

২০২০ সালে আমফান ঘূর্ণিঝড়ের পর ত্রাণ নিয়ে রাজ্যের শাসক দলের কোনও কোনও স্থানীয় নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। একের পর এক অভিযোগ শুনে বিরক্তি প্রকাশও করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বিরোধী সিপিএম, বিজেপি এবং কংগ্রেস আমপানের ত্রাণ নিয়ে সরকারকে নানা ভাবে আক্রমণ করে। এ বারের বিধানসভা নির্বাচনেও আমপান পরবর্তী ত্রাণের দুর্নীতি ছিল বিরোধীদের অন্যতম বড় ইস্যু।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest