Ajoy Edwards asks people to choose name for new political outfit

পাহাড় রাজনীতিতে নয়া বাঁক! যাত্রা শুরু গ্লেনারিস কর্তার ‘হামরো পার্টি’র

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

পাহাড়ে ফের এক নয়া চমক। আত্মপ্রকাশ ঘটল নতুন রাজনৈতিক দলের। এবার রাজনীতির ময়দানে বড় ভূমিকায় গ্লেনারিস (Glenarys) কর্তা অজয় এডওয়ার্ডস (Ajoy Edwards)। বৃহস্পতিবার মিরিক থেকে নিজের নতুন দলের নাম ঘোষণা করলেন দার্জিলিঙের (Darjeeling) এই জনপ্রিয় রেস্তোরাঁর মালিক। তাঁর নতুন দলের নাম হামরো পার্টি। এদিন মিরিকে একটি সাংবাদিক বৈঠক করে দলের নাম ও লোগো প্রকাশ করেন অজয় এডওয়ার্ডস।

শৈলশহরে বেশ পরিচিত মুখ অজয় এডওয়ার্ড। গ্লেনারিস রেস্তোরাঁর কর্তা বলে যথেষ্ট পরিচিতি রয়েছে। তিনি একদা জিএনএলএফের দার্জিলিং শাখার সভাপতি ছিলেন। সেখানে মন ঘিসিং–এর সঙ্গে মতপার্থক্য তৈরি হওয়ায় অজয় দল থেকে ইস্তফা দেন। জানা গিয়েছে, মোট ১২২টি নামের প্রস্তাব এসেছিল এডওয়ার্ডসের নতুন দলের জন্য। তার মধ্যে থেকে চারটি নাম বেছে নেওয়া হয়। তার উপর ভোটাভুটি হয়। হামরো পার্টি নামটিতেই সবচেয়ে বেশি ভোট পড়ে। শেষ পর্যন্ত এই নামটিই চূড়ান্ত করা হয়। প্রকাশ করা হয় নতুন দলের লোগোও।

পাহাড় এবং তরাইয়ের মানুষের বিভিন্ন অসুবিধা নিয়ে কাজ করার কথা বলেন তিনি। পাহাড়ের মাটিতে নতুন রাজনৈতিক দল হামরো পার্টির সভাপতি অজয় এডওয়ার্ড বলেন, ‘‌মানুষের সমস্যা নিয়ে কেউ কাজ করছে না। সবাই নিজের আখের গোছাচ্ছে। মানুষ সবাইকে দেখেছেন। এবার আমাদের কাজ দেখবেন।’‌ তবে দেখার বিষয় পাহাড়ের একাধিক রাজনৈতিক দলের মধ্যে নতুন রাজনৈতিক দল হামরো পার্টি পাহাড়বাসীর কাছে কতটা সমর্থন জোগাড় করতে পারে।

দল তৈরির আগে অজয় সমীক্ষা করেছিলেন বলে খবর। সেখান থেকেই দলের নাম চূড়ান্ত হয়। তিনি বলেন, ‘‌দল তৈরির আগে পাহাড়ের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়িয়েছি। কালিম্পং, কার্শিয়াং, দার্জিলিং, মিরিকে যাই। অনুরাগীদের সঙ্গে কথা বলি। সবাই কী চায়, তা বুঝতে পেরেছি। পাহাড়বাসীর হয়ে কাজ করব কথা দিচ্ছি।’‌ পৃথক গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে সরব অজয় এডওয়ার্ড।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest