তৃণমূলত্যাগীদের বিশ্বাস করে না বিজেপি! শুভেন্দুকে নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য একদা ঘনিষ্ঠ সুনীল মণ্ডলের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

দলত্যাগ আইন নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে টানাপড়েন চলছে। তার মধ্যেই এ বার বেসুরো বর্ধমান পূর্বের সাংসদ সুনীল মণ্ডল। বিজেপি এবং দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। নীলবাড়ির লড়াইয়ের আগে পদ্মশিবিরে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তৃণমূল থেকে আসা লোকজনকে বিজেপি মানতে পারছে না বলে এ বার অভিযোগ করলেন তিনি। শুধু তাই নয়, প্রস্তাব পেলে তৃণমূলে ফিরে যাওয়া নিয়ে ভাবনা চিন্তা করবেন বলেও জানালেন।

সাংসদ সুনীল মণ্ডল বলেন, ‘BJP আমাদের বিশ্বাস করতে পারেনি। দিল্লি থেকে উড়ে এসে ভোটে জেতা যায় না। শুভেন্দু কথা রাখেনি।’ তিনি বলেন, ‘শুভেন্দু প্রথম আমার বাড়ি আসে। যে কথা আমায় যে যে কথা দিয়েছিল, একটা কথা মানেনি। দাদা ভাই হয়ে এক সঙ্গে কাজ করব বলেছিল। কিন্তু কথা রাখেনি।’ শুভেন্দু কি আপনার সঙ্গে প্রতরণা করেছে? তাঁর উত্তর, ‘শুধু আমার আমার সঙ্গে নয়, অনেকের সঙ্গেই করেছে।’ এরপর বলেন, ‘শুভেন্দুকে নিয়ে আমি আর একটাও কথা বলতে চাই না। আমার সঙ্গে এখন সম্পর্ক নেই।’

একইসঙ্গে BJP রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল হয়ে বর্তমান সরকারকে ঠিকমতো কাজ করতে দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ তোলেন। তৃণমূল সরকারের প্রশংসাও করে তিনি বলেন, ‘এই সরকারকে কাজ করতে দেওয়া উচিত।’ এরপরই তৃণমূলে ফিরতে চান কিনা প্রশ্নের জবাবে সাংসদ বলেন, ‘তৃণমূলে ফেরার বিষয়টি এখনও ভাবিনি। ভেবে দেখব।’ এমনকি তিনি যে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে যে গুরুত্ব দিচ্ছেন না তাও এদিন স্পষ্ট করে দেন তিনি। বিক্ষুব্ধ সাংসদের কথায়, ‘কেন্দ্রের নিরাপত্তা থাকবে কিনা তা আমার উপর নির্ভর করছে না।’

আরও পড়ুন: ‘‌সাঁইবাড়ি’‌ নিয়ে বিকাশ–মীনাক্ষীর পোস্ট ঘিরে সিপিএম–কংগ্রেস ‘‌নেটযুদ্ধ’‌ চরমে

BJP সর্বভারতীয় দল হলেও সাংগঠনিক স্তরে অনেক দুর্বলতা রয়েছে বলেও তোপ দাগেন পূর্ব মেদিনীপুরের সাংসদ। তাঁর কথায়, ‘আমরা ভেবেছিলাম বিজেপি বড় সাংগঠনিক দল। কিন্তু এখানে এসে সেই সাংগঠনিক ব্যাপারটা পাচ্ছি না।’

বিধানসভা ভোটে শোচনীয় ফলের জন্য BJP নেতৃত্ব দায়ী বলে অভিযোগ তোলেন সাংসদ সুনীল মণ্ডল। তিনি বলেন, ‘আজ মুসলিম সমাজ একজোট। অনেক মুসলিম আমাদের সঙ্গে ছিল। তাদের ধরে রাখতে পারলে অনেক লাভবান হত। পচা শামুকেও পা কাটে। একটা ভোটের অনেক দাম।’ একইসঙ্গে তাঁর অভিযোগ, যারা বাংলার বাইরে থেকে প্রবাসী প্রচারে এসেছিলেন, তাঁরা বাংলা সম্পর্কে কী জানে! তাঁদের বাংলা সম্পর্কে কোনো জ্ঞান ছিল না। ভাষাগত দক্ষতা ছিল না। এখানকার মানুষ হিন্দি বুঝবে কি করে! গ্রামগঞ্জের মানুষ তো হিন্দি জানেই না।

গত ডিসেম্বর মাসেই শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে মেদিনীপুরে অমিত শাহের উপস্থিতিতে BJP-তে যোগ দিয়েছিলেন বর্ধমান পূর্বের তৃণমূল সাংসদ সুনীল কুমার মণ্ডল৷ তার আগেও তাঁর বাড়িতেও গিয়েছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন: IPAC: ২০২৬-এর বিধানসভা পর্যন্ত তৃণমূলের গাঁটছড়া আইপ্যাক-এর, কিন্তু প্রশান্ত কিশোর থাকছেন কি?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest