Food and water denied to wedding photographer, In return he deletes all the photos

Viral: বিয়ের আসরে খাবার না পেয়ে রেগে কাঁই ফটোগ্রাফার! মুহূর্তে মুছে দিলেন সমস্ত ছবি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

ওয়েডিং (Wedding) ফটোগ্রাফি। আজকের দিনে বিয়ের অনুষ্ঠানে তো বটেই, তার আগে থেকেই শুরু হয়ে যায় ছবি তোলা। জীবনের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তকে ধরে রাখাতে ছবি ও ভিডিওর জুড়ি নেই। ভাবুন তো, অত শখ করে নিয়োগ করা ফটোগ্রাফার (Photographer) আপনার চোখের সামনেই যদি ডিলিট করে দেয় বিয়ের সমস্ত ছবি! এমনই এক আজব ঘটনা ঘিরে শোরগোল নেটবিশ্বে।

‘রেডিট’-এ নিজেই নিজের কীর্তি ফাঁস করেছেন ওই ফটোগ্রাফার। তবে সেই সঙ্গে এও জানাতে ভোলেননি যে তিনি আসলে সেই অর্থে পেশাদার ফটোগ্রাফারও নন। সে না হয়, নাই হলেন। কিন্তু কেন এভাবে বিয়ের আসরের ছবি তুলেও এই কাণ্ড ঘটালেন তিনি?

নেটমাধ্যমে নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন ওই ফটোগ্রাফার। লিখেছেন, তিনি পেশাদার ফটোগ্রাফার নন। শখেই ছবি তোলেন। মূলত কুকুর বা পোষ্য জীবজন্তুর ছবি তুলেছেন এত দিন। তবে কিছু দিন আগে হঠাৎই এক বন্ধু তাঁকে নিজের বিয়ের ছবি তোলার প্রস্তাব দেন। সেখান থেকেই সমস্যার শুরু।

শখের ফটোতুলিয়ে জানিয়েছেন, প্রথমে ওই প্রস্তাবে রাজি হতে চাননি। এমনকি বন্ধুকে তিনি জানিয়ে দেন, আগে কোনও বিয়ের অনুষ্ঠানে ছবি তোলেননি তাই এ কাজের দায়িত্ব নেওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু তারপরও বন্ধু তাঁকে জোর করতে থাকেন। এমনকি ‘ছবি দেখতে ঠিক ঠাক হলেই হল’ বলে সাহসও জোগান। ওই আলোকচিত্রী জানিয়েছেন, বন্ধুর অনুরোধেই শেষ পর্যন্ত ছবি তুলতে রাজি হন।

 ফটোগ্রাফারের কথায়, ” ২৫০ ডলারের চুক্তি হয়েছিল ছবি তোলার জন্য। সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়েছিল ছবি তোলা। চুক্তি ছিল সন্ধে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত ছবি তোলা হবে। কিন্তু গোল বাঁধে বিকেলে। বিকেল ৫টা নাগাদ যখন খাবার পরিবেশন করা হচ্ছিল আমি ওদের জানাই আমার খুব খিদে পেয়েছে। না খেয়ে আমি থাকতে পারব না। কিন্তু ওরা রাজি হয়নি। এদিকে আমি খুবই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। ঘরটায় এসি ছিল না। গরম পড়েছিল তেড়ে।”তিনি এসে বরবেশী যুবককে বলেন, ২০ মিনিটের একটা ব্রেক দিতে। কিছু খাদ্য ও পানীয় না পেলে তাঁর পক্ষে আর কাজ করা সম্ভব নয়। জবাবে শুনতে হয়, ‘টাকার বিনিময়ে কাজ করছো। হয় পেশাদারের মতো কাজ করে টাকা নিয়ে বাড়ি যাবে। না হলে কাজ ছেড়ে বিশ্রামই নাও।’ সারাদিনের ক্লান্তির পর এর পর আর মাথার ঠিক ছিল না ফটোগ্রাফারের। তিনি বন্ধুর সামনে তৎক্ষণাৎ তাঁর বিয়ের তোলা সবক’টি ছবি ডিলিট করে দেন এবং বাড়ি ফিরে যান।

তাঁর সটান জবাব, ”সেই সময় ২৫০ ডলারের আর মায়া ছিল না। তার চেয়ে এক গ্লাস ঠান্ডা জলই ছিল পছন্দের।” তবে রাগের মাথায় করা কাজ ঠিক হয়েছে কি না, সেটা ভেবে তিনি এখন দোটানায়। নেটমাধ্যমে জানিয়েছেন, তাঁর বন্ধু বিয়ের একটি ছবিও নেটমাধ্যমে দেননি। অনেকে তাঁদের জিজ্ঞাসাও করছেন ছবির ব্যাপারে। সে সব দেখে অপরাধবোধে ভুগছেন ওই আলোকচিত্রী। জানতে চেয়েছেন, তিনি যা করেছেন, তা ঠিক ছিল কি!

 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest