In retaliation for the Kabul bombings, counter-drone strikes by US forces

কাবুল বিস্ফোরণের প্রত্যাঘাত, পাল্টা ড্রোন হামলা মার্কিন বাহিনীর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

একদিনের মধ্যেই বদলা নিল আমেরিকা (USA)। কাবুল বিমানবন্দরে হামলার সমালোচনা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট (Joe Biden) বৃহস্পতিবার রাতেই বলেছিলেন, “কিছু ভোলা হবে না, কাউকে মাফও করা হবে না। জড়িতদের খুঁজে বের করে উচিত শাস্তি দেওয়া হবে।” এরপরই জানা গেল, শুক্রবারই ইসলামিক স্টেট-খোরাসান(ISlamic State-Khorasan)-র উপর হামলা চালায় মার্কিন ড্রোন।

ইউএস সেন্ট্রাল কমান্ডের তরফে ক্যাপ্টেন বিল আরবান জানিয়েছেন. “আমাদের এই এয়ার স্ট্রাইক-এর আলাদা করে কোন নাম ছিল না। আমরা হানা দিয়েছিলাম আফগানিস্তানের নানাগহর প্রদেশ। প্রাথমিক ভাবে যেটুকু খবর আসছে তাতে আমরা আমাদের লক্ষ্যকে নিকেশ করেছি। কোনও সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়নি তা নিশ্চিত।”

প্রসঙ্গত , ২৬ অগাস্ট সন্ধ্যায় বহু দেশের গোয়েন্দাদের আশঙ্কা সত্যি করে কাবুল বিমানবন্দরে কাছে দুটি আত্মঘাতী বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়। ১০০-র বেশি মানুষের। এর মধ্যে বেশ কয়েকজন মার্কিন সেনা ছিলেন। সেই ঘটনার দায় নেয় ইসলামিক স্টেট। পাশাপাশি তালিবান বিবৃতি দিয়ে বলে এই ঘটনায় তাদের কোনও হাত নেই।

আরও পড়ুন: বহু ভারতীয়-সহ মোট ১৫০ ‘অপহৃত’ কাবুলে, অভিযোগ সম্পূর্ণ উড়িয়ে দিল তালিবান

বৃহস্পতিবার কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে ও ব্য়ারন হোটেলের সামনে একের পর এক বিস্ফোরণে প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ১০৩ জন। এরমধ্যে ১৩ জন মার্কিন সেনাও রয়েছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলির দাবি মৃতের সংখ্যা ২০০ পার করেছে। আহতও দেড়শোর বেশি মানুষ। এই হামলার দায় স্বীকার করে নিয়েছে ইসলামিক স্টেট খোরাসান বা আইসিস-কে। বিস্ফোরণের কয়েক ঘণ্টা পরে হোয়াইট হাউস থেকে সাংবাদিক বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, যারা এই হামলা চালিয়েছে, তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়া হবেই। বিস্ফোরণের ঘটনায় ভয় না পেয়ে উদ্ধারকার্য জারি রাখা হবে বলেই জানিয়েছেন তিনি।

সাংবাদিক বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, “যারা এই হামলা চালিয়েছে এবং যারা আমেরিকার ক্ষতি চায়, তারা শুনে রাখুন- আমরা ভুলব না, ক্ষমাও করব না। আমরা ঠিক খুঁজে বের করব এবং তোমাদের এই হামলার মূল্য চোকাতেই হবে।” একই সঙ্গে বিস্ফোরণে জড়িত আইসিস-কে গোষ্ঠীকেও যথাযোগ্য জবাব দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন। বাইডেন বলেন, “আমি কম্যান্ডারদেরও নির্দেশ দিয়েছি আইসিস-কের নেতা, সম্পত্তি ও সংগঠন উপর পাল্টা হামলা চালানোর পরিকল্পনা করতে। আমরা সঠিক সময়ে আমাদের পছন্দমতো জায়গাতেই কড়া জবাব দেব।”

আরও পড়ুন: বাংলাদেশে বন্ধ পাবজি ও ফ্রি ফায়ার, তালিকা হচ্ছে ক্ষতিকর অ্যাপের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest