পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫ জনে দাঁড়িয়েছে, আহতের সংখ্যা ১৫০ জনেরও বেশি। আজ (মঙ্গলবার) ধ্বংসস্তুপের ভেতর থেকে আরও ১২টি মৃতদের উদ্ধার করা হয়েছে পাকিস্তানি গণমাধ্যম জানিয়েছে।

সোমবার স্থানীয় সময় ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে সিন্ধুর ঘোটকি জেলার দারকি শহরের কাছে করাচি থেকে আসা ট্রেন মিল্লাত এক্সপ্রেসের আটটি বগি লাইনচ্যুত হয়, তখন ওই লাইনে অপরদিকে দিক থেকে আসা স্যার সৈয়দ এক্সপ্রেস নামের আরেকটি ট্রেন বগিগুলোকে সজোরে ধাক্কা দেয়।

আরও পড়ুন : রাস্তায় সপাটে চড় খেলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ

মিল্লাত এক্সপ্রেস করাচি থেকে সারগোদা যাচ্ছিল আর সৈয়দ এক্সপ্রেস রাওয়ালপিন্ডি থেকে আসছিল। এই দুটি ট্রেনে প্রায় ১২০০ যাত্রী ছিলেন।

সোমবার সারাদিন ধরে উদ্ধার কাজ চালানোর পরও আজ ভোরে ধ্বংসস্তূপের নিচে অনেক যাত্রী আটকা পড়ে ছিলেন, তাই হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছিল।

ঘোটকির রাইতি ও ডাকারকি রেলওয়ে স্টেশনের মধ্যবর্তী এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।  স্থানীয় কৃষক ও গ্রামবাসীরা প্রথম ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধারকাজ শুরু করেন। উদ্ধারকাজে ও আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে তারা ট্র্যাক্টরও ব্যবহার করেন। পরে পুলিশ, আধা-সামরিক বাহিনী, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ও সেনা সদস্যরা উপস্থিত হয়ে উদ্ধার কাজে অংশ নেয়।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এ দুর্ঘটনায় হতাশা প্রকাশ করে দায়ীদের খুঁজে বের করতে পূর্ণ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন।

 ইসলামাবাদে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত সাইয়্যেদ মোহাম্মাদ আলী হোসেইনি বলেছেন, তিনি ইরানের পক্ষ থেকে দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তি ও তাদের স্বজনসহ পাকিস্তানের জনগণ এবং সরকারকে শোক ও সমবেদনা জানাচ্ছেন। একইসঙ্গে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত ও হতাহতদের স্বজনদের ধৈর্য শক্তি দানের জন্য আল্লাহর কাছে দোওয়া করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন : ফিরতে চান তৃণমূলে, বীরভূমে মাইকিং করে আবেদন বিজেপি কর্মীদের!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *