সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমানের মেয়াদ শেষ! এবার কি তবে শেষ হচ্ছে নেতানিয়াহুর শাসন?

২৮ দিনের মেয়াদে লাপিদ ও বেনেট নেতানিয়াহুর বিরোধী 'পরিবর্তনের সরকার' গঠনে আলোচনা করছেন। সরকার গঠনে লাপিদের হাতে থাকা ২৮ দিনের মেয়াদ বুধবার শেষ হচ্ছে। এই মেয়াদের মধ্যে যদি লাপিদ সরকার গঠনে ব্যর্থ হন, তবে দুই বছরের মধ্যে ইসরাইলে পঞ্চম দফায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

সরকার গঠনে ইসরায়েলে ইয়েশ আতিদ দলের প্রধান ইয়ায়ির লাপিদের হাতে থাকা ২৮ দিন মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বুধবার। এর মধ্যেই আজ রবিবার ইসরায়েলের সংবাদমাধ্যমে প্রচার করছে, সম্ভাব্য জোট সরকার গঠনের একদম কাছাকাছি চলে এসেছেন প্রাক্তন এই ইসরায়েলি সাংবাদিক। এর মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও লিকুদ দলের প্রেসিডেন্ট বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ১২ বছরের শাসন শেষ হতে চলছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইসরায়েলি পার্লামেন্টে ছয় আসন পাওয়া রক্ষণশীল ইয়ামিনা পার্টির প্রধান নাফাতলি বেনেটের সঙ্গে লাপিদ জোট সরকার গঠনের জন্য আলোচনা করছিলেন। লাপিদের সঙ্গে জোট সরকার গঠনে সম্মতির বিষয়ে বেনেট রবিবারেই ঘোষণা দিতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। তবে এর আগে বেনেটকে নিজ দলীয় নেসেট সদস্যদের লাপিদের সঙ্গে জোট গঠনের বিষয়ে সম্মত করাতে হবে।

আরও পড়ুন : ইউহানের গবেষণাগারেই তৈরি হয়েছে করোনা! প্রমাণ মিলেছে বলে দাবি বিজ্ঞানীদের

জোট সরকার গঠনে বেনেট সম্মতি দিলেও নির্ধারিত সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারছেন না ইয়ায়ির লাপিদ। সরকার গঠনের জন্য নেসেটের আরব-ইসরায়েলি সদস্যদের সমর্থনের প্রয়োজন হচ্ছে তার। ইসরায়েলে চলমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় গত ২৩ মার্চ দুই বছরের মধ্যে চতুর্থ সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এই নির্বাচনেও কোনো দল বা জোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়।

ইসরায়েলে সরকার গঠনের জন্য ১২০ আসনবিশিষ্ট আইন পরিষদ নেসেটের ৬১ সদস্যের সমর্থনের প্রয়োজন হয়। প্রথম দফা আলোচনার পর নেসেটের ৫২ সদস্য প্রধানমন্ত্রী পদে নেতানিয়াহুর সুপারিশ করায় এপ্রিলের শুরুতে তাকে সরকার গঠনের জন্য প্রথম মনোনয়ন দেন রিভলিন। সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জিত না হলেও ওই সময় এটিই ছিল সর্বোচ্চ মনোনয়ন।

কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে নেতানিয়াহুকে সমর্থন করা জিউনিস্ট পার্টি কোনো আরব দলের সাঙ্গে সরকার গঠনের অস্বীকৃতি জানানোয় তিনি সরকার গঠনে ব্যর্থ হন। নেতানিয়াহুর ব্যর্থতার পর ৫ মে নতুন করে নেসেট সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করেন প্রেসিডেন্ট রিভলিন। নতুন আলোচনায় রক্ষণশীল ইয়ামিনা পার্টির প্রধান নাফতালি বেনেটের সাথে ক্ষমতা ভাগাভাগির এক প্রস্তাবনার পরিপ্রেক্ষিতে মোট ৫৬ সদস্যের সুপারিশ পান লাপিদ।

ক্ষমতা ভাগাভাগির এই প্রস্তাবনায় লাপিদ ও বেনেট পর্যায়ক্রমে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন। প্রস্তাবনা অনুসারে প্রথম দফায় লাপিদ প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন।

২৮ দিনের মেয়াদে লাপিদ ও বেনেট নেতানিয়াহুর বিরোধী ‘পরিবর্তনের সরকার’ গঠনে আলোচনা করছেন। সরকার গঠনে লাপিদের হাতে থাকা ২৮ দিনের মেয়াদ বুধবার শেষ হচ্ছে। এই মেয়াদের মধ্যে যদি লাপিদ সরকার গঠনে ব্যর্থ হন, তবে দুই বছরের মধ্যে ইসরাইলে পঞ্চম দফায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুন : এশিয়ায় প্রথম দৃষ্টিহীন ব্যক্তির মাউন্ট এভারেস্ট জয়

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest