The European Union has provided 10,000 billion in aid to Afghanistan to avert a humanitarian catastrophe

মানবিক বিপর্যয় এড়াতে আফগানিস্তানে ১০ হাজার কোটি সাহায্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

প্রবল আর্থিক সঙ্কটে পড়া আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়াল ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের তরফে আফগানবাসীর জন্য ১২০ কোটি ইউরো (প্রায় ১০,৪৫৩ কোটি টাকা) অর্থসাহায্য ঘোষণা করে হয়েছে। ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন মঙ্গলবার এই ঘোষণা করে বলেন, ‘‘আফগানিস্তানকে মানবিক এবং আর্থ-সামাজিক বিপর্যয় থেকে বাঁচাতেই এই পদক্ষেপ।’’

রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেস সদস্য দেশগুলির কাছে আফগান-অনুদানের আবেদন জানিয়ে বলেন, ‘ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম’ (ডব্লিউএফপি) কর্মসূচি রূপায়ণে ওই অর্থ ব্যবহৃত হবে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও আফগানিস্তানে মানবিক বিপর্যয় এড়াতে অর্থসাহায্যের আবেদন জানান রাষ্ট্রপুঞ্জে।

উরসুলা জানিয়েছেন, এই ১২০ কোটি ইউরোর মধ্যে ২৫ কোটি (প্রায় ২,১৭৭ কোটি টাকা) দেওয়া হবে আফগানিস্তানের কয়েকটি প্রতিবেশী দেশকে, যারা ঘরছাড়া আফগানদের আশ্রয় দিয়েছে। আফগানিস্তানে আর্থিক সঙ্কট নিয়ে মঙ্গলবার আলোচনা হয়েছে জি-২০-র ভার্চুয়াল বৈঠকেও। ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যোগ
দিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য তালেবানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি তাদের সরকারকে বিরক্ত ও ‘অস্থিতিশীল’ না করতে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর শনিবার দোহায় প্রথম মুখোমুখি আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রকে এই হুঁশিয়ারি দিয়েছে তালেবান।

এদিকে, আফগানিস্তানে ২০ বছরের যুদ্ধের ক্ষতিপূরণ হিসেবে যুক্তরাজ্য এবং অন্যান্য দেশগুলোর সরকারকে হাজার কোটি ডলার হস্তান্তর করার জন্য জোর দিচ্ছে তালেবান। এই দাবি যুক্তিসঙ্গত বলে মনে করে তালেবানরা এবং তারা আত্মবিশ্বাসী যে যুক্তরাজ্য তা মেনে নেবে।

কাতারের রাজধানীতে আলোচনার পর মুত্তাকি আফগানিস্তানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা বখতারকে বলেন, ‘আমরা তাদের স্পষ্টভাবে বলেছি যে, আফগানিস্তানে সরকারকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা কারো জন্যই ভালো নয়।’ তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তানের সাথে সুসম্পর্ক সবার জন্য ভালো। আফগানিস্তানে বিদ্যমান সরকারকে দুর্বল করার জন্য এমন কিছু করা উচিত নয় যা জনগণের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।’

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের ডেপুটি স্পেশাল রিপ্রেজেন্টেটিভ টম ওয়েস্ট এবং ইউএসএইড-এর শীর্ষ হিউম্যানিটারিয়ান কর্মকর্তা সারা চার্লসের নেতৃত্বে একটি আমেরিকান দলের সঙ্গে দুই দিনের আলোচনার প্রথম দিনেই মুত্তাকি এই মন্তব্য করেছেন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest