Gyanvapi Mosque : Lawyer says ASI survey found remnants of Hindu temple in Varanasi mosque

Gyanvapi Mosque: মন্দিরের কাঠামোতে মসজিদ! জ্ঞানবাপী মামলায় এএসআই রিপোর্ট প্রকাশ পক্ষের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

বারাণসীতে হিন্দু মন্দিরের কাঠামো সামান্য বদলে তার উপরেই জ্ঞানবাপী মসজিদ তৈরি করা হয়েছিল। ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণ বিভাগের (আর্কিয়োলজিকাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া বা এএসআই) সমীক্ষার রিপোর্টে এমনটাই উল্লেখ করা হয়েছে বলে দাবি হিন্দু পক্ষের আইনজীবী বিষ্ণুশঙ্কর জৈনের।

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকের আয়োজন করেছিল হিন্দু পক্ষ। সেখানেই বিষ্ণুশঙ্কর জৈন দাবি করেন, “মন্দিরের পুরনো কাঠামো ব্যবহার করেই মসজিদ তৈরি করা হয়েছে বলে এএসআই-এর রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে। ”

গত ১৮ ডিসেম্বর বারাণসী (Varanasi) জেলা আদালতে মুখবন্ধ খামে জ্ঞানবাপী মসজিদের সমীক্ষা রিপোর্ট (Survey Report) জমা দিয়েছিল ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণ।  এএসআইয়ের ওই রিপোর্ট হিন্দু এবং মুসলিম দুই পক্ষকেই দেওয়া হবে বলে জানিয়েছিল আদালত। বৃহস্পতিবার তা প্রকাশ্যে আসে এবং এএসআইয়ের রিপোর্ট অনুযায়ী, মসজিদের নিচে এখনও মন্দিরের ভাঙা কাঠামো রয়েছে।

এর আগে জ্ঞানবাপী নিয়ে মুখ খুলেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্য়মন্ত্রী। জ্ঞানবাপী কমপ্লেক্স নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এএনআই এডিটর স্মিতা প্রকাশ তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। তখনই ওই জ্ঞানবাপী কমপ্লেক্স নিয়ে বিশেষ মন্তব্য করেছেন যোগী আদিত্যনাথ। তিনি জানিয়েছেন জ্ঞানবাপীর দেওয়াল গুলো সব কাঁপছে। এটাকে মসজিদ বলা হলে বিতর্কের কারণ হয়ে উঠবে।

গত ২১ জুলাই  হিন্দু পক্ষের আবেদন মেনে জ্ঞানবাপী মসজিদের ‘সিল’ করা এলাকার বাইরে এএসআই-কে সমীক্ষার অনুমতি দিয়েছিলেন বারাণসী জেলা আদালতের বিচারক। এ ব্যাপারে গত ১৮ ডিসেম্বর বারাণসী জেলা আদালতে মুখবন্ধ খামে রিপোর্ট জমা দিয়েছিল আরকিওলজিক্যাল সোসাইটি অফ ইন্ডিয়া।

আস্থায় রায় হয়েছিল বাবরি মামলার। সুপ্রিম কোর্ট বলেছিলো মন্দির ভেঙে যে এই মসজিদ তৈরী হয়েছিল তারা কোনো প্রমান নেই। সুপ্রিম কোর্ট এও বলেছিল সেদিন বাবরি ধ্বংস অন্যায় ছিল। বাবরি ভিতরে যেভাবে রামলাল ঢোকানো হয়েছিল তাও জানিয়েছিল শীর্ষকোর্ট। তারপর পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ আইনের দিকে না টিকিয়ে রায় দেওয়ায় সময় গরিষ্ঠ সংখ্যক ভারতীয়র আবেগকে দেখেছিলেন।রায় হয়েছিল আস্থায়। সেদিনের রায় দেওয়া বিচারপতির মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বতমানে রাজ্যসভার সাংসদ। বিচারপতি আব্দুল নাজির বর্তমানে অন্ধ্রপ্রদেশের রাজ্যপাল।

https://www.thenewsnest.com/india-gyanvapi-mosque-lawyer-says-asi-survey-found-remnants-of-hindu-temple-in-varanasi-mosque/

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest