Siddique Kappan released from prison after 2 years

Siddique Kappan: দু’বছর পর মুক্তি! জামিন পেলেন সাংবাদিক সিদ্দিক কাপ্পান

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest

অবশেষে মুক্তি! দু’বছর পর জামিন পেলেন কেরলের বিতর্কিত সাংবাদিক সিদ্দিক কাপ্পান (Siddique Kappan)। ২০২০ সালে আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করা এবং অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগে কাপ্পানের বিরুদ্ধে UAPA ধারায় মামলা করে উত্তরপ্রদেশ সরকার। তখন থেকে তিনি জেলবন্দি। একই সঙ্গে কাপ্পানের বিরুদ্ধে আর্থিক তছরুপের মামলাও হয়েছিল। অবশেষে দুটি মামলাতেই জামিন পেলেন তিনি। সব ঠিক থাকলে দু’বছর বাদে জেল থেকে মুক্তি পাবেন কেরলের এই বিতর্কিত সাংবাদিক।

২০২০ সালের ৫ অক্টোবর গ্রেফতার হন মালায়ালাম কাগজের সাংবাদিক কাপ্পান (journalist arrested in Uttar Pradesh)। উত্তরপ্রদেশের হাথরসে (Hathras) ধর্ষিতা এবং নিহত এক দলিত তরুণীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন কাপ্পান। কিন্তু সেখানে পৌঁছানোর আগেই মথুরায় গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। ইউএপিএ আইনে মামলা দায়ের করা হয় তাঁর বিরুদ্ধে। তাঁর সঙ্গে ধর্মীয় কট্টরপন্থী দল পিএফআই (পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া) এবং নিষিদ্ধ সংগঠন সিমি (স্টুডেন্ট ইসলামিক মুভমেন্ট অফ ইন্ডিয়া)র যোগ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছিল উত্তরপ্রদেশ সরকার। যোগী সরকার কাপ্পানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে মদত দেওয়ার অভিযোগ এনেছিল। এছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে আর্থিক তছরুপের অভিযোগ এনেছিল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

আরও পড়ুন: Bihar Hooch Tragedy: ট্রেন থেকে উদ্ধার দেহ! বিহারে বিষমদকাণ্ডে মৃত্যুমিছিল অব্যাহত

দেশবিরোধী কার্যকলাপে যুক্ত থাকার অভিযোগের মামলায় গত সেপ্টেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্ট জামিন দিয়েছিল তাঁকে। কিন্তু তারপরেও লখনউয়ের জেলেই থাকতে হয়েছিল কাপ্পানকে, কারণ ইডির দায়ের করা আর্থিক তছরুপের মামলাগুলিতে জামিন পাননি তিনি। ফলে হাথরস ষড়যন্ত্র মামলায় শীর্ষ আদালতে শর্তসাপেক্ষে জামিন পাওয়ার পরেও জেল থেকে ছাড়া পাননি তিনি। চলতি মাসের শুরুতে ইডির দায়ের করা আর্থিক তছরুপের মামলার শুনানি শুরু হয়। তারপর শুক্রবার অবশেষে তাঁকে জামিন দিল আদালত।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন এক দলিত তরুণী। দিল্লির একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর মৃত্যু হয় তাঁর। উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিরুদ্ধে তরুণীর বাড়ির লোকের অমতে জোর করে মৃতদেহ সৎকার করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। যোগী সরকারের বিরুদ্ধে সেই সময় বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছিল দেশ। সেই সময় আরও কয়েকজনকে নিয়ে তরুণীর বাড়িতে যাচ্ছিলেন কাপ্পান। সেই সময় কাপ্পান ও তাঁর সঙ্গীদের মথুরা থেকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। তারপর থেকে গত দুবছর লখনউ জেলেই বন্দি ছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন: Covid-19: আজ থেকেই বাজারে এসে গেল ন্যাজাল ভ্যাকসিন, কোথায় পাবেন জানুন

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
Share on email
Share on reddit
Share on pinterest